রাজ্যে একদিনে ৩৮ জন মৃত কোভিডে, আক্রান্ত প্রায় সাড়ে ৮ হাজার, ভাঙছে সব রেকর্ড

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রাজ্যে এখনই লকডাউন নয়, কার্ফুও নয়। আতঙ্কিত হওয়ার বদলে সচেতনতা বেশি জরুরি। আজ দুপুরেই মালদার সাংবাদিক বৈঠকে এমনটা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘোষণা করেছেন, একাধিক নতুন বেড, সেফ হাউস, কোভিড হাসপাতালের কথা।

তবে সোমবার সন্ধেবেলাতেই যে বুলেটিন প্রকাশ করল রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর, তাতে আতঙ্কই ঠেকছে বহু মানুষের। প্রতিদিন রেকর্ড ভাঙা সংক্রমণ হচ্ছে। গতকাল রবিবারের বুলেটিনে দেখা গেছিল, ৮৪১৯ জন সংক্রমিত  হয়েছিল রাজ্যে। আজ সে সংখ্যা খুব একটা বাড়েনি, একই আছে প্রায়। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৮৪২৬ জন। ফলে আপাত ভাবে দেখে মনে হচ্ছে, সংক্রমণের গ্রাফ বুঝি একটু থেমেছে। তবে ভয় বাড়িয়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। ৩৮ জন একদিনে মারা গেছেন কোভিডে। গতকাল এই সংখ্যাটা ছিল ২৮। একদিনে মৃত্যু বাড়ল ১০ জনের।

প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে কি তীব্রতা বাড়াচ্ছে কোভিড? নাকি চিকিৎসা পরিষেবার হাল ভেঙে পড়েছে! এমনিতেই দেশের নানা প্রান্ত থেকেই ওষুধ ও অক্সিজেনের আকালের খবর আসছে। কোথাও বা একটি বেডে দুটি করোনা রোগীকে রেখে চিকিৎসা হচ্ছে। এবার কি সেই তালিকায় নাম লেখাতে চলেছে বাংলাও!

আজ সন্ধ্যায় যে বুলেটিন প্রকাশিত হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে রাজ্যে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর অবস্থা দুটি জেলায়। কলকাতা ও উত্তর চব্বিশ পরগনা। গত চব্বিশ ঘণ্টায় কলকাতায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ২২১১ জন। উত্তর চব্বিশ পরগনায় আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ১৮০১ জন। এই দুই জেলায় মৃত্যু যথাক্রমে ১২ এবং ৯। হাওড়া ও হুগলিতে একদিনে আক্রান্ত যথাক্রমে ৫২৭ ও ৪৪০ জন। উল্লেখযোগ্যভাবে দৈনিক সংক্রমণ বেড়েছে মালদহে। একদিনে সেখানে আক্রান্ত ৪৩৫ জন।

আজকের বুলেটিন বলছে কোভিড সক্রিয় রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় সাড়ে ৫৩ হাজার। সর্বাধিক সংক্রমণ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতেই। সেই তুলনায় জঙ্গলমহল ও উত্তরবঙ্গে সংক্রমণের হার কিছুটা হলেও কম। রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হল ৬ লক্ষ ৬৮ হাজার ৩৫৩ জন।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More