মালদায় পাঁচ ছাত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগ, মাদক খাইয়ে অত্যাচার, পুলিশ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেনি

দ্য ওয়াল ব্যুরো, মালদহ: বাড়ির সামনে থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে পাঁচ নাবালিকা ছাত্রীকে মাদক খাইয়ে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠল মালদহে। অভিযোগ এতই স্পর্শকাতর যে এ ব্যাপারটা রটে যেতেই আন্দোলিত হয়ে গেছে পুরনো এই জেলা শহর। পুলিশ অবশ্য ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেনি।

পুরাতন মালদা থানার নবাবগঞ্জ এলাকায় জনমানবহীন একটি ইটভাটায় নিয়ে গিয়ে ওই পাঁচ নাবালিকাকে গণধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ। নির্যাতিতা ওই পাঁচজন স্থানীয় হাইস্কুলের ষষ্ঠ, অষ্টম, একাদশ শ্রেণির ছাত্রী। স্থানীয় সূত্রে বলা হচ্ছে, ঘটনার পর প্রশাসনের দ্বারস্থ হয় ওই পাঁচ নির্যাতিতা ছাত্রীর পরিবার। থানায় অভিযোগ দায়ের হলেও এখন পর্যন্ত গ্রেফতার হয়নি অভিযুক্তরা।

তবে পুরাতন মালদহ থানার আইসি শান্তিনাথ পাঁজা দাবি করেন কোনও ধর্ষণের ঘটনাই ঘটেনি। একটি অভিযোগ জমা পড়েছে তার ভিত্তিতেই তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্থানীয় কয়েকজন যুবক পাঁচ জন নাবালিকা মেয়েকে তাদের বাড়ির সামনে থেকে ডেকে নিয়ে যায়। অভিযোগ, স্থানীয় একটি ইটভাটায় নিয়ে গিয়ে তাদের প্রথমে মাদক খাওয়ানো হয়। তারপর ওই পাঁচজন নাবালিকা অচৈতন্য হয়ে পড়তেই অভিযুক্তরা অকথ্য অত্যাচার চালায় তাদের উপর। অভিযুক্তরা প্রত্যেক ছাত্রীকে ধর্ষণ করে এবং অচৈতন্য অবস্থায় ইটভাটাতে ফেলে দিয়ে পালায়।

নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যদের দাবি ইটভাটার ভেতর থেকে একজন মেয়ের চিৎকার শুনতে পেয়ে ছুটে যান তাঁরা। সেখানেই সেই পাঁচজন নির্যাতিতা নাবালিকাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এরপরেই মালদহ থানার পুলিশের দ্বারস্থ হন নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যরা । লিখিত অভিযোগ দায়ের হওয়ার ২৪ ঘণ্টা পরেও অভিযুক্তরা অধরা। ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

স্থানীয় বাসিন্দা বাবলু শেখ মন্টু মণ্ডলরা বলেন, ‘‘এই এলাকাতেই অভিযুক্তরা বেশ কিছুদিন ধরেই দাপট দেখাচ্ছে। এর আগেও একাধিকবার বিভিন্ন মামলায় পুলিশ আটক করেছিল অভিযুক্তদের । প্রকাশ্যে গুলি চালানোর ঘটনা থেকে শুরু করে বিভিন্নধরনের অসামাজিক কাজকর্মে লিপ্ত রয়েছে অভিযুক্তরা।’’

পুরাতন মালদহ থানার ধর্ষণের ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জেলার বিজেপি সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র মণ্ডল। তিনি বলেন, ‘‘এই ধরনের ঘটনা এই রাজ্যে নতুন নয়। প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও কোনও ধর্ষণের ঘটনা ঘটে চলেছে। তবে একটি ছোট জেলায় একসঙ্গে পাঁচজন নাবালিকা মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনা আগে কোনওদিন হয়নি। পুলিশ প্রশাসনের উচিত দোষীদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে গ্রেফতার করা।’’ তিনি জানিয়েছেন, নির্যাতিতার পরিবারের পাশে রয়েছে জেলা বিজেপি। দোষীদের গ্রেফতার করা না হলে পুরাতন মালদা থানা ঘেরাওয়ের পাশাপাশি স্তব্ধ করে দেওয়া হবে গোটা জেলাকে ।

মালদা জেলা তৃণমূলের মুখপাত্র শুভময় বসু বলেন, ‘‘অভিযোগের ভিত্তিতেই বলে দেওয়া যায় না ধর্ষণ হয়েছে কি না। তবে পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চালাচ্ছে। যদি অভিযোগ প্রমাণিত হয় তাহলে দোষীদের শাস্তি হবে। তাতে দল রং দেখা হবে না।’’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More