মুকেশ আম্বানি যাতে ফিউচার গ্রুপের ব্যবসা না কিনতে পারেন, সেজন্য সুপ্রিম কোর্টে অ্যামাজন

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ফিউচার গ্রুপের ৩৪০ কোটি ডলারের খুচরো ব্যবসা কিনে নিতে চেয়েছিলেন রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের কর্ণধার মুকেশ আম্বানি। টাকার অঙ্কে ওই ব্যবসার মূল্য প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা। অ্যামাজন দাবি করে, ফিউচার গ্রুপের সঙ্গে আগেই তাদের চুক্তি হয়েছিল। সেই চুক্তির শর্ত অনুযায়ী ফিউচার তার খুচরো ব্যবসা রিলায়েন্সকে বিক্রি করতে পারে না। সিঙ্গাপুরের এক আরবিট্রেটর মুকেশ আম্বানিকে ওই ব্যবসা কিনতে বাধা দেয়। কিন্তু আরবিট্রেটরের সিদ্ধান্ত নাকচ করে দেয় দিল্লি হাইকোর্ট। হাইকোর্টের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে গেল অ্যামাজন।

দিল্লি হাইকোর্ট ফিউচার ও রিলায়েন্স গ্রুপের ডিল নিয়ে অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশ দিয়েছিল। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে ফের ওই মামলার শুনানি হবে।

গতবছর অগাস্ট মাসে ফিউচার গ্রুপ তার খুচরো ব্যবসা রিলায়েন্সকে বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেয়। অ্যামাজন বলে, ২০১৯ সালে তাদের সঙ্গে ফিউচারের চুক্তি হয়েছিল। তাতে বলা হয়েছিল, কয়েকটি কোম্পানিকে ফিউচার তার সম্পত্তি বেচতে পারবে না। তার মধ্যে রিলায়েন্সও ছিল। সুতরাং রিলায়েন্সকে খুচরো ব্যবসা বিক্রি করলে ফিউচার চুক্তিভঙ্গ করবে।

ফিউচারের খুচরো ব্যবসা আয়তনে দেশের মধ্যে দ্বিতীয় বৃহত্তম। ভারতে তাদের ১৭০০ স্টোর আছে। তাদের বক্তব্য, রিলায়েন্সের সঙ্গে যদি তাদের চুক্তি বাস্তবায়িত না হয়, তাহলে তারা লিকুইডেশনের দিকে যেতে বাধ্য হবে।

সুপ্রিম কোর্টে অ্যামাজন বলেছে,  আপাতত ফিউচার গ্রুপের সঙ্গে রিলায়েন্সের চুক্তি বাস্তবায়িত হতে না দিলেই সব পক্ষের স্বার্থরক্ষা করা যাবে। ধনকুবের জেফ বেজোসের মালিকানাধীন সংস্থা অ্যামাজনের দাবি, ফিউচার ও রিলায়েন্স গ্রুপ যদি ওই চুক্তি কার্যকর করতে শুরু করে, তাদের থামানো মুশকিল হবে।

গত বছর জানা যায়, রিলায়েন্সের খুচরো ব্যবসায় জেনারেল আটলান্টিক নামে এক সংস্থা বিনিয়োগ করছে ৩৬৭৫ কোটি টাকা। মুকেশ অম্বানী এক বিবৃতিতে বলেন, “জেনারেল আটলান্টিকের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক গভীরতর হচ্ছে। এর ফলে বিনিয়োগকারী এবং ভোক্তা, উভয়েরই সুবিধা হবে। ভারতে খুচরো ব্যবসার চেহারাই বদলে যাবে।” ভারতে বার্ষিক খুচরো বাজারের পরিমাণ ৮০ হাজার কোটি ডলার। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে তা দাঁড়াবে ১ লক্ষ ৩০ হাজার কোটি ডলার। এই বাজারে বিনিয়োগ করার জন্য নানা দেশের বিনিয়োগকারীরা উৎসাহ দেখিয়েছেন। খুচরো ব্যবসায় মার্কেট লিডার এখন রিলায়েন্স রিটেল। তারা দোকান থেকে যেমন জিনিসপত্র বিক্রি করে, তেমন জিওমার্ট ই-কমার্সের মাধ্যমে অনলাইনেও বিক্রি করে পণ্য।

গতবছর মে মাসে ২০০ টি শহরে পরিষেবা দেওয়া শুরু করেছে জিওমার্ট। তারা বিক্রি করছে খাবার ও মুদির দোকানের জিনিসপত্র। ফ্লিপকার্ট ও অ্যামাজনের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামার জন্য আগামী কয়েক মাসের মধ্যে ফ্যাশনের নানা সামগ্রী ও জুতো বেচতে শুরু করবে জিওমার্ট।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More