দিদিকে চ্যালেঞ্জ বিপ্লবের: বিতর্কে বসুন, ১০ মিনিট টিকতে পারবেন না

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন কথায়-কথায় ত্রিপুরা টানছেন তখন বাংলায় এসে সেই ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন দিদির উদ্দেশে।

কয়েক সপ্তাহ আগে বর্ধমানে সিপিএমের জনসভায় দাঁড়িয়ে বিজেপিকে তীব্র আক্রমণ করেছিলেন ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার। বলেছিলেন, ত্রিপুরায় গিয়ে দেখে আসুন। বিজেপি এই তিন বছরে কী সর্বনাশ করে দিয়েছে।

তারপর অন্তত কয়েকটি জনসভায় মানিক সরকারের বক্তব্যকে পুঁজি করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, “ত্রিপুরার এক্স সিএম মানিক সরকার কী বলেছেন শুনেছেন তো? বিজেপি এসে ত্রিপুরার হাল বেহাল করে দিয়েছে।”

সিপিএম-তৃণমূল যখন ত্রিপুরাকে তুলে ধরছে অপশাসনের মডেল হিসেবে তখন গত ৭ ফেব্রুয়ারি হলদিয়ার সভায় এসে স্ট্রেট ব্যাট চালিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, “ত্রিপুরায় আমাদের সরকার কী অনবদ্য কাজ করছে। সমস্ত সরকারি প্রকল্প বাস্তবায়নে তাদের কী দুর্দান্ত পারফরম্যান্স!”

মঙ্গলবারের বার বেলায় বাংলার মাটিতে দাঁড়িয়ে এবার সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চ্যালেঞ্জ করলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। দিদির উদ্দেশে বিপ্লব এদিন বলেন, “আমি দিদিকে স্বাগত জানাচ্ছি, আমার সঙ্গে বিতর্কে বসুন। ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর শতাংশ থেকে সরকারি কর্মচারীদের জন্য সপ্তম পে স্কেল, তাঁদের জন্য অন্যান্য পরিকল্পনাগ্রহণ কিংবা সরকারি প্রকল্পের বাস্তবায়ন– কোনও কিছুতেই দিদি ত্রিপুরার উন্নয়নের সামনে ১০ মিনিট টিকতে পারবেন না।”

সেইসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ২০১৮ সালে ত্রিপুরার মানুষের মধ্যে তিনি যে পরিবর্তনের আকাঙ্ক্ষা দেখেছিলেন, এদিন বাংলায় এসে একই জিনিস দেখেছেন। সিপিএম-তৃণমূলকে একযোগে আক্রমণ শানিয়ে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “দেশ-দুনিয়াকে দিশা দেখানো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, স্বামী বিবেকানন্দ, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর মহান বাংলা কেন আজকে পিছিয়ে গেল? এর জবাব দিতে হবে পুরনো কমিউনিস্ট পার্টি এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে।” বাংলার বিজেপি কর্মীদের উদ্দেশে বিপ্লবের মন্ত্র, “ভারতীয় জনতা পার্টির সমস্ত কর্মীদের এখন প্রাণপাত পরিশ্রম করতে হবে। তৃণমূলের কর্মীর বাড়িতেও পরিবর্তনের কথা পৌঁছে দিতে হবে। সবাই তৃণমূল ছাড়ার জন্য, পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত।”

বাংলার ভোটে যে বিপ্লব দেব অন্যতম তারকা বক্তা তা অনেকদিন আগেই জানা গিয়েছিল। সেই মতো রিহার্সালও শুরু করে দিয়েছিলেন বিপ্লববাবু। মাস দেড়েক আগেই ত্রিপুরার একটি সরকারি অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে দিদির সরকারের তীব্র সমালোচনা শোনা গিয়েছিল তাঁর গলায়। কিন্তু ভোট ঘোষণা হতে যখন আর কয়েক সপ্তাহ দুয়েক বাকি তখন বাংলায় এসে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকেই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন বিপ্লব দেব।

এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে তৃণমূলের সাংসদ সৌগত রায় বলেন, “বিপ্লব দেব একটা ফালতু লোক। উনি কোথায় কখন কী বলেন, মাথার ঠিক নেই। একসময়ে উনি এখানকার এক সাংসদের পিএ ছিলেন। এখন মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাত বারের এমপি, এখন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিপ্লব দেবের মতো মানুষের সঙ্গে বিতর্কে বসতে যাবেন কেন! ওদের মাথার ঠিক নেই, তাই এসব বলছে। নইলে সময় এখনও এতটা খারাপ হয়ে যায়নি যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিপ্লব দেবের সঙ্গে বিতর্কে বসবেন।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More