ট্যাঙ্ক টপে গায়িকার ছবি ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়, কু-মন্তব্যের জবাবে কী বললেন বিলি এলিস

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত বুধবার আমেরিকান সঙ্গীতশিল্পী বিলি এলিস তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে একটি ট্যাঙ্ক টপ পরা ছবি আপলোড করেন। একদিনেই ১১ মিলিয়ান লাইকস আর ৯০ হাজারেরও বেশি কমেন্ট পেয়ে ভাইরাল হয় ছবিটি । ছবিটির জন্য নেটিজেন মহলে রীতিমতো সমালোচিত হতে হয় তাঁকে। ট্যাঙ্ক টপ পরে এর আগে কখনও এই মার্কিন গায়িকাকে সর্বসমক্ষে দেখা যায়নি। সাধারণত বিলিকে যে পোশাকে তার ফ্যানেরা দেখতে অভ্যস্ত,তার থেকে একেবারে আলাদা এই পোশাক। আজকের দিনে দাঁড়িয়েও আমেরিকার মত একটি দেশে একজন শিল্পীকে কেবলমাত্র পোশাকের জন্য সমালোচিত হতে হবে, এটা বোধহয় ভাবতে পারেন নি কেউ।

আমেরিকা নিবাসী বিলি এলিস মাত্র ১৮ বছর বয়সেই গান লিখে ও গেয়ে সাড়া ফেলে দিয়েছেন বিশ্বে। সাউন্ড ক্লাউডে ‘ওসেয়ান আইজ’ গানটি আপলোড করার পর থেকেই একটু একটু করে ফ্যান ফলোয়ারের সংখ্যা বাড়তে শুরু করে তাঁর। পেয়েছেন ইতিমধ্যেই  ছ’ছটি “গ্র্যামি” অ্যাওয়ার্ড। সাধারণত নতুন গানের ভিডিওতে, স্টেজ শো বা নর্মাল যেকোন অনুষ্ঠানে ঢিলেঢালা ব্যাগি স্টাইলের পোশাকেই বিলিকে দেখতে অভ্যস্ত সবাই। একবার এক ইন্টারভিউয়ে তিনি বলেন, “আই হেট মাই বডি”! আর সেই কারণেই নাকি এমন ঢিলেঢালা পোশাক পরতে পছন্দ করেন এই তরুণ গায়িকা।

এই পোস্টটির পরে একটি ছোট ভিডিও-ও আপলোড করেন বিলি। তাতে তিনি জানান “ইনস্টাগ্রামে, সিনেমায় আমাদের যেমন দেখতে লাগে, সেটা আমাদের আসল চেহারা নয়। ইনস্টাগ্রামের ছবিকে বিশ্বাস করবেন না। মেয়েদের চেহারার বিচার না করে, মানুষ হিসাবে তাদের ভালবাসুন।”

বিলির কথা থেকেই স্পষ্ট , মেয়েরা যে যেমন, তাঁদের সেভাবেই থাকতে দেওয়ার কথা বলেছেন তিনি। বর্তমান যুগে পোশাক বা চেহারা নিয়ে যদি কেউ সমালোচনা করেন বা কুৎসিত মন্তব্য করেন তাহলে আর যাই হোক, সেই ব্যক্তির মানসিকতাকে আধুনিক বলা যায় না। পোশাক বা চেহারা দিয়ে কোনও মানুষকে বিচার করা উচিত নয় বলেই মনে করেন এই মার্কিন গায়িকা।

বিলির পোস্ট করা ছবিতে যেমন অনেক কু-মন্তব্য ভেসে এসেছে, আবার তেমনই তাঁকে সমর্থন করেও লিখেছেন অনেকেই। যেমন কেউ লিখেছেন, “বিলি বিউটিফুল। তুমি যেমন, তোমাকে সেভাবেই পছন্দ করি। করব”

আবার কেউ লিখেছেন, ” আমরা মেয়েরা মাঝে মাঝে ক্লান্ত হয়ে পড়ি। এমনভাবে সমাজ আমাদের সবসময় বিচার করে যে নিজেদের ইচ্ছেমত বাঁচার তাগিদ হারিয়ে ফেলি আমরা।” । কেউ বা লিখেছেন, ” ব্লু-ফিল্মের নায়িকাদের বা ইনস্টাগ্রামের সুন্দরীদের দেখে সাধারণ মেয়েদের চেহারার বিচার করা বন্ধ করুন। কোনও সভ্য আধুনিক মানুষের কাছ থেকে এমন মন্তব্য একেবারেই কাম্য নয়।”

Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More