‘পৃথিবীর ফুসফুস’কে বাঁচাতে এগিয়ে এল বলিভিয়া, আকাশ থেকে জল ঢালবে ‘সুপার ট্যাঙ্কার’ বিমান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভয়াবহ ভাবে পুড়ে যাচ্ছে আমাজনের অরণ্য। পৃথিবীর মোট অক্সিজেনের ২০ শতাংশ সরবরাহ করে যে ‘ফুসফুস’, তা দ্রুত জ্বলে যাচ্ছে। লক্ষ লক্ষ গাছের সঙ্গেই ঝলসে মৃত্যু হচ্ছে বহু পশুপাখির।সপ্তাহ তিনেক হতে চলল এই অবস্থার। সারা বিশ্ব জুড়ে এ নিয়ে আলোচনা হলেও, আগুন নেভানোর ব্যবস্থা করা যায়নি কোনও ভাবেই। এই কাজে এই প্রথম এগিয়ে এল বলিভিয়া।

বলিভিয়ার রাষ্ট্রপতি ইভো মোরালেস আগেই সাহায্যের কথা বলেছিল ব্রাজিলকে। কিন্তু তখনও সে ভাবে নড়ে বসেনি ব্রাজিলের সরকার। এবার দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। তাই দাবানলের এই ছড়িয়ে পড়া রুখতে সুপার ট্যাঙ্কার বোয়িং বিমান ৭৪৭ ভাড়া করার কথা ঘোষণা করেন ইভো। শুক্রবার থেকেই আগুন আয়ত্বে আনতে আকাশ পথে ওই ট্যাঙ্কার নিয়ে অভিযান শুরু হয়েছে।

নির্দিষ্ট ওই জলবাহী ‘সুপার ট্যাঙ্কার’টি-তে সব চেয়ে বেশি জল ধরে। ১১৫ হাজার লিটার জল নিয়ে উড়তে পারে সেটি। আগুনে পুড়তে থাকা আমাজন জঙ্গলের উপরে ওই বিমান থেকেই জল ঢালা হবে। ট্যাঙ্কারটি ওড়ার আগে একটি বায়ুসেনার বিমান উড়ে গিয়ে চিহ্নিত করে নেয় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলি। তার পরে সেই অঞ্চল দিয়ে জল ঢালতে ঢালতে উড়ে যায় ‘সুপার ট্যাঙ্কার’। এই ট্যাঙ্কারের সঙ্গে আছে তিনটি অতিরিক্ত হেলিকপ্টার। আছেন ৫০০ জন ফায়ার ফাইটার সেনা, যাঁরা প্রয়োজনে জঙ্গলে নেমে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে।

দক্ষিণ আমেরিকায়, আমাজন নদীর অববাহিকায় প্রায় ৫৫ লক্ষ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত আমাজন রেনফরেস্ট। গত আট মাসে সেখানে ৭২ হাজারটি দাবানল হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তাতেই জ্বলে পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে বিশ্বের ফুসফুস। কালো ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছে আকাশ জুড়ে। ন’টি দেশ– ব্রাজিল, পেরু, কলম্বিয়া, ভেনেজুয়েলা, ইকুয়েডর, বলিভিয়া, গায়ানা, সুরিনাম ও ফরাসি গায়ানা জুড়ে ছড়িয়ে এই বনভূমি।

তথ্য বলছে, প্রতি মিনিটে প্রায় ১০ হাজার বর্গকিলোমিটার জঙ্গল পুড়ে যাচ্ছে রোজ। আমাজনের অঞ্চল ছাড়িয়ে সেই আগুনের ধোঁয়ায় দিনের বেলাতেই অন্ধকার নেমেছে ব্রাজিলের সব চেয়ে বড় শহর সাও পাওলোতে। আমাজন অরণ্য থেকে সাও পাওলোর দূরত্ব প্রায় সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার।

সারা পৃথিবীকে অক্সিজেনের জোগান দেওয়া ছাড়াও গ্রিনহাউস গ্যাস নিয়ন্ত্রণে রাখে এই অরণ্য। এখন এই দাবানলের ফলে সেখান থেকেই বিপুল পরিমাণে কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গত হচ্ছে। বিষিয়ে যাচ্ছে পরিবেশ। সেই সঙ্গে ভেঙে পড়ছে অরণ্যের বাস্তুতন্ত্রও। পৃথিবীর সব চেয়ে জীব বৈচিত্র্যে ভরপুর এই অরণ্যে ২৫ লক্ষের বেশি পতঙ্গের প্রজাতি, ৪০ হাজারের বেশি গাছের প্রজাতি, দু’হাজার পাখি ও স্তন্যপায়ী প্রজাতি এবং ২,২০০ প্রজাতির মাছের বাস এই আমাজনে। আগুনে পুড়ে যাচ্ছে তারাও।

বলিভিয়ার চেষ্টায় আমাজনের এই ঝলসে যাওয়া আটকানো যায় কি না, সেটাই এখন দেখার।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More