পথে নেমে জনে জনে মাস্ক পরাচ্ছেন পুলিশকর্মীরা, কোভিড-যুদ্ধে লড়ছে ক্যানিং প্রশাসন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা আবহেই বাংলায় চলছে ভোট উৎসব। নির্বাচনী প্রচার থেকে শুরু করে ভোটদান পর্ব, স্বাস্থ্য দফতর নির্দেশিত করোনা বিধি অনুসরণের বালাই নেই কোথাও। এই অবস্থায় জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য নতুন উদ্যোগ নিল ক্যানিং থানার পুলিশ প্রশাসন।

ক্যানিং থানার ইনস্পেক্টর আতিবুর রহমানের নেতৃত্বে শনিবার রাজপথে নামে এলাকার পুলিশবাহিনী। উদ্দেশ্য একটাই, অতিমারী আবহে জনগণের মধ্যে সচেতনতার প্রসার ঘটানো। এদিন সকাল থেকে মাইকিং করে ক্যানিংয়ের বিভিন্ন এলাকায় প্রচার চালানো হয় প্রশাসনের তরফে। সাধারণ মানুষকে মাস্ক, স্যানিটাইজার ব্যবহারের পরামর্শও দেওয়া হয়। এমনকি কোনও কোনও ক্ষেত্রে মাস্কহীন ব্যক্তির হাতে বিনামূল্যে মাস্ক ও স্যানিটাইজার তুলেও দেয় পুলিশ।

ক্যানিং বাসস্ট্যান্ড ও বাজার সংলগ্ন এলাকায় পুলিশি প্রচারে এদিন দেখা যায় অভিনব ছবি। আইসি আতিবুর রহমান নিজেই মাইকিং করেন। পথচলতি মানুষের হাতে তুলে দেন মাস্ক। প্রশাসনের এহেন সচেতনতামূলক কর্মকাণ্ডে সামিল হন সুন্দরবনের বিশিষ্ট কবি তথা সমাজসেবী ফারুক আহমেদ সর্দার। গাড়ি চালক থেকে শুরু করে সাইকেল বা বাইক আরোহী, করোনা মোকাবিলায় সহায়তার জন্য সকলকেই একযোগে আহ্বান জানান পুলিশ কর্মীরা।

দিন কয়েক আগেই ক্যানিং মহকুমা অঞ্চলের ভোটগ্রহণ পর্ব মিটেছে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফার সেই নির্বাচনকালে যে সমস্ত রাজনৈতিক জমায়েত হয়েছিল তা থেকেই ক্যানিংয়ে করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়ে গেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ভোটের জন্য নির্ধারিত দিনের ২৪ ঘণ্টা আগে পর্যন্ত ক্যানিংয়ে প্রচার চালায় রাজনৈতিক দলগুলি। বলা বাহুল্য, সেসব রাজনৈতিক জমায়েতে সাধারণ মানুষের মুখে মাস্কের দেখা খুব বেশি মেলেনি।

দেশ জুড়ে রেকর্ড হারে যেভাবে করোনা সংক্রমণ বেড়ে চলেছে, তাতে ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ প্রথমবারের থেকেও বেশি বিপজ্জনক হতে পারে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। কিন্তু সামাজিক দূরত্ববিধি তো দূর, মুখে মাস্কটুকু পর্যন্ত এখনও পরেন না অনেকেই। ‘অবাধ্য’ জনতাকে সচেতন করতে কিছুদিন আগে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছিলেন কলকাতা পুলিশের কর্মীরা। বিভিন্ন এলাকায় মাস্কহীন ব্যক্তিদের গ্রেফতার করা হয়েছিল। অবশ্য এখনই তেমন কড়াকড়ির পথে হাঁটেনি ক্যানিং পুলিশ।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More