ভারতের পাওয়ার গ্রিডে চিনের সাইবার হামলা, সরব হলেন মার্কিন কংগ্রেস সদস্য

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গতবছর যখন ভারতের সঙ্গে চিনের সীমান্ত বিরোধ তুঙ্গে, তখন বেজিং থেকে ভারতের বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রগুলিতে সাইবার হামলা হয়েছিল। এই ঘটনায় আমেরিকার বাইডেন প্রশাসনকে দৃঢ়ভাবে ভারতের পাশে দাঁড়াতে বললেন কংগ্রেসম্যান ফ্রাঙ্ক প্যালোন। সোমবার টুইট করে তিনি বলেছেন, “ভারত আমাদের স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার। চিন যেভাবে ভারতের পাওয়ার গ্রিডের ওপরে হামলা চালিয়েছিল, তার নিন্দা করা উচিত। ওই হামলায় হাসপাতালে পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।”

পরে প্যালোন বলেন, “বিশ্বের ওই অঞ্চলে চিনকে আমরা প্রভুত্ব করতে দেব না। তারা সব দেশকে ভয় দেখিয়ে রাখতে চায়।” সোমবার আমেরিকার ম্যাসাচুসেটসের কোম্পানি ‘রেকর্ডেড ফিউচার’ জানায়, সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, চিনের সরকারের মদতে একটি গোষ্ঠী ভারতের পাওয়ার গ্রিড সিস্টেমে হ্যাক করেছিল।

মার্কিন বিদেশ দফতর জানিয়েছে, তারা রেকর্ডেড ফিউচারের ওই রিপোর্ট সম্পর্কে জানে। দফতরের এক মুখপাত্র বলেন, “আমরা ওই সমীক্ষার কথা জানি। সাইবারস্পেসে হামলার বিরুদ্ধে আমরা বিশ্ব জুড়ে কাজ করছি।”

রেকর্ডেড ফিউচার বলেছে, গতবছর জুন মাসে গালওয়াল উপত্যকায় সংঘর্ষের পরেই চিনারা ভারতের বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থাগুলিকে ম্যালওয়ারের মাধ্যমে অচল করে দিতে চেষ্টা করে। ম্যালওয়ারগুলির বেশিরভাগ অ্যাকটিভেটেড হয়নি। গত অক্টোবরে বাণিজ্যনগরী মুম্বইতে ব্যাপক বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঘটে। শহরে কোভিড সংকট যখন তুঙ্গে তখন বিদ্যুৎ বিপর্যয়ে অচল হয়ে পড়ে বহু হাসপাতাল। থেমে যায় ট্রেন। এই বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের পিছনে চিনাদের হাত ছিল।

বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থাগুলির সিস্টেমের ভেতরে ম্যালওয়ার কীভাবে কাজ করেছিল, রেকর্ডেড ফিউচার জানাতে পারেনি। কারণ বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থার তথ্য তারা পায় না। তবে ওই মার্কিন সংস্থা জানিয়েছে, ২০২০ সালের শুরু থেকেই চিন সরকারের বিভিন্ন সংস্থা ভারতের পরিকাঠামো ক্ষেত্রে ঢুকে পড়তে চেষ্টা করেছিল।

সম্প্রতি চিন সীমান্তে উত্তেজনা কিছু পরিমাণে কমেছে। ভারতের সঙ্গে বোঝাপড়ার ভিত্তিতে লাদাখ সীমান্ত থেকে সেনা সরাচ্ছে চিন। কিন্তু সেনাপ্রধান এম এম নারাভানে বলেছেন, শুধু সেনা সরালেই হবে না। আমাদের আরও অনেক পথ অতিক্রম করতে হবে। চিনের সঙ্গে আমাদের বোঝাপড়ার অভাব রয়েছে। লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের দু’পাশে কী হচ্ছে, তার ওপরে নজর রাখতে হবে।”

জেনারেল নারাভানের আশা, পাকিস্তানের সঙ্গে দীর্ঘদিন আলোচনা করলে ফল হতে পারে। দুই দেশের মধ্যে বোঝাপড়া হওয়াও অসম্ভব নয়। কারণ সীমান্তে হিংসা চললে কারও লাভ হয় না। চিন সম্পর্কে তিনি বলেন, তাদের স্বভাবই হল সীমান্ত পেরিয়ে এগিয়ে আসা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More