গত বছর পুষ্পবৃষ্টি, এবছর করোনা যোদ্ধাদের জীবনবিমাই বন্ধ করে দিল কেন্দ্র

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বছর খানেক আগে যখন করোনার প্রকোপ সবে জাঁকিয়ে বসেছে ভারতের উপর, হাসপাতালের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের ‘করোনা যোদ্ধা’ আখ্যা দিয়েছিল কেন্দ্র সরকার। শুধু তাই নয়, নিজের জীবন বিপন্ন করে অতিমারীর আবহে প্রাণপণ চিকিৎসা করে যাওয়া ডাক্তার-নার্সদের উপর হেলিকপ্টার থেকে পুষ্প বৃষ্টিও করা হয়েছিল। কিন্তু সেই করোনা যোদ্ধাদের জন্য ঘটা করে আনা জীবনবিমা প্রকল্পই এবার চুপিসারে বন্ধ করে দিল কেন্দ্র।

হাসপাতালে করোনা রোগীর চিকিৎসা করতে গিয়ে যদি কোনও ডাক্তার-নার্স বা স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যু হয়, তবে তাঁদের জন্য ৫০ লক্ষ টাকার জীবনবিমা প্রকল্পের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সরকারের তরফে গত বছরেই ঘোষণা করা হয়েছিল এই প্রকল্প। করোনা রিলিফ প্যাকেজের আওতায় এই প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল ১.৭ লক্ষ কোটি টাকা। কিন্তু বছর ঘুরতেই আর তা এগিয়ে না নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল মোদী সরকার। অথচ করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের দাপট সামলাতে এখন কার্যত হিমশিম খাচ্ছেন দেশের করোনা যোদ্ধারা।

সরকারি পরিসংখ্যানে জানা গেছে, এ পর্যন্ত কেন্দ্রের প্রকল্পের আওতায় মাত্র ২৮৭ জন করোনা যোদ্ধা ৫০ লক্ষ টাকা বিমার সুবিধা পেয়েছেন। শুধু ডাক্তার-নার্স বা স্বাস্থ্যকর্মী নন, সাফাই কর্মচারী, আশা কর্মীদেরও জীবনবিমার সুবিধা দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। প্রায় ২২ লক্ষ করোনা যোদ্ধাকে সাহায্যের জন্য ঘোষিত এই কেন্দ্রীয় প্রকল্প কেন হঠাৎ মাঝপথেই বন্ধ করে দেওয়া হল? স্বভাবতই নানা মহলে তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

সরকারি সূত্র জানাচ্ছে চলতি বছরের ২৪ মার্চ এই প্রকল্প বন্ধ করে দেওয়ার কথা জানিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ রাজ্যগুলিকে চিঠি পাঠিয়েছেন। সেখানে বলা হয়েছে করোনা যোদ্ধাদের জন্য ঘোষিত জীবনবিমা প্রকল্পের মেয়াদ আর বাড়ানো হবে না। অবশ্য ২৪ মার্চের আগে পর্যন্ত যাঁরা যাঁরা আবেদন করেছেন তাঁরা প্রকল্পের সুবিধা পাবেন।

গত বছরের ২৬ মার্চ কেন্দ্রের তরফে প্রকল্পটি ঘোষণা করেছিলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সিতারামন। প্রথমে ৯০ দিনের জন্য ঘোষিত হলেও পরে প্রকল্পের মেয়াদ বাড়িয়ে এক বছর করে দেওয়া হয়। সেই এক বছর সম্পূর্ণ হতে না হতেই বন্ধ হল কেন্দ্রীয় প্রকল্প।

ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের পরিসংখ্যান বলছে এ পর্যন্ত করোনার প্রাদুর্ভাবে প্রাণ হারিয়েছেন দেশের প্রায় ৭৩৯ জন এমবিবিএস ডিগ্রিধারী ডাক্তার। এদিকে ভ্যাকসিন আবিষ্কার হলেও করোনার দাপট কমার কোনও লক্ষণ নেই। দিন দিন লাফিয়ে বাড়ছে ভাইরাসের সংক্রমণ। দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই লাখের গণ্ডি ছাড়িয়ে গেছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More