লাদাখ সীমান্ত পেরিয়ে বেআইনিভাবে ভারতে প্রবেশ, ধরা পড়ল চিনা সৈনিক

দ্য ওয়াল ব্যুরো : লাদাখে চুমার-দেমচক এলাকায় সোমবার ধরা পড়ল এক চিনা সৈনিক। সে বেআইনিভাবে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢুকে পড়েছিল। সেনাবাহিনীর হাতে সে ধরা পড়ে। তার কাছে সামরিক ও অসামরিক কয়েকটি নথি পাওয়া যায়। সেনাবাহিনী জানিয়েছে, নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া মেনে তাকে পিপলস লিবারেশন আর্মির হাতে তুলে দেওয়া হবে।

কিছুদিন আগেই জানা যায়, পিএলএ-কে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। ভারতও পাহাড়ের উচ্চতায় শীতের সময় যে কোনও পরিস্থিতির জন্য তৈরি হচ্ছে। আর সেই জন্যই জরুরি ভিত্তিতে আমেরিকার কাছ থেকে সেনার জন্য শীতের পোশাক কিনেছে ভারত। এই পদক্ষেপ থেকেই পরিষ্কার, শীতের সময়েও লাদাখ থেকে সেনা সরাতে চাইছে না নয়াদিল্লি।

সেনা সূত্রে খবর, ভারত ও আমেরিকা দু’দেশের বাহিনীর মধ্যে একটি চুক্তি রয়েছে যার সাহায্যে একে অন্যের থেকে অস্ত্র, জ্বালানি, যুদ্ধবিমান, ট্যাঙ্ক প্রভৃতির অংশ এবং অন্যান্য সরঞ্জাম তারা নিতে পারে। ২০১৬ সালে ভারত ও আমেরিকার সেনার মধ্যে এই ‘দ্য লজিস্টিকস এক্সচেঞ্জ মেমোরান্ডাম এগ্রিমেন্ট’ হয়েছিল। এই চুক্তির আওতায় থেকেই এই পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে খবর।

আগেই জানা গিয়েছিল, শীতকালেও লাদাখ সীমান্ত থেকে সেনা সরাতে চাইছে না ভারত। বরং কীভাবে সেই সময় সেনা মোতায়েন করে রাখা যায় তা নিয়ে গত মে-জুন মাসেই বৈঠকে বসেছিলেন সেনাপ্রধান এম এম নারাভানে। সেনার কম্যান্ডারদের সঙ্গে আলোচনা করে এই বিষয়ে একটি ব্লু-প্রিন্টও তৈরি করা হয়েছে। সেইমতো সেনা মোতায়েন হচ্ছে।

এছাড়া সম্প্রতি লাদাখে গিয়েছে সি ১৭ গ্লোবমাস্টার ক্যারিয়ার এয়ারক্রাফট। ভারতীয় বায়ুসেনার এই বিমানে করে জওয়ান, রসদ থেকে শুরু করে অস্ত্র, ট্যাঙ্ক সবকিছু পরিবহণ করা সম্ভব। তাই এই বিমানের লাদাখে যাওয়ার অর্থ সেনার জন্য পর্যাপ্ত রসদও পৌঁছে দেওয়ার কাজ হচ্ছে।

শীতকালে লাদাখের তাপমাত্রা মাইনাসে চলে যায়। তাই সেই সময় সেনা সরিয়ে নেওয়ার এক অলিখিত নিয়ম রয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে লাদাখ সীমান্তে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর চিনা সেনা যেভাবে আগ্রাসী মনোভাব দেখাচ্ছে তাতে কোনও রকমের সুযোগ দিতে চাইছে না ভারত। তারাও নিজেদের বাহিনীকে মোতায়েন রাখতে চাইছে। আর এই ঠান্ডায় সেনা মোতায়েন রাখতে গরম পোশাকের প্রয়োজন। আমেরিকার সেনার থেকে সেই পোশাকই নিয়েছে ভারত।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More