‘টিকা নিয়ে এতটা বৈষম্য অর্থহীন, এতে কালোবাজারির পথ প্রশস্ত হবে’, ফের মোদীকে চিঠি মমতার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কেন্দ্রের ভ্যাকসিন-নীতি নিয়ে ফের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এইবার তাঁর বক্তব্য, পয়লা মে থেকে যে গণ টিকাকরণ পদ্ধতি শুরু হতে চলেছে, তা বিদ্বেষপূর্ণ ও সাধারণ মানুষের মঙ্গলের পরিপন্থী। এটার পেছনে ব্যবসায়িক স্বার্থ রয়ে যাচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি।

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সদ্য যে ভ্যাকসিন নীতি ঘোষণা করা হয়েছে, তাতে জানা গেছে, নির্মাতা সংস্থার কাছ থেকে ভ্যাকসিন কিনতে কেন্দ্রকে দিতে হবে একরকম দাম। কিন্তু রাজ্যের জন্য তার চেয়ে বেশ খানিকটা চড়া হারে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এই বৈষম্য নিয়ে আজ সকালেই টুইট করে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি লেখেন,”এক দেশ, এক দল, এক নেতৃত্বের কথা বলে বিজেপি। কিন্তু জীবন বাঁচাতে এক দরে টিকা দিতে পারে না। প্রতিটি ভারতীয়ের বিনামূল্যে টিকা প্রয়োজন। বয়স, জাতি, গোষ্ঠী, ভৌগলিক এলাকা নির্বিশেষে টিকার একটিই দাম নির্ধারণ করা উচিত। রাজ্য ও কেন্দ্রের জন্য দু’টি আলাদা দর হওয়া উচিত নয়।”

এর পরে প্রধানমন্ত্রীকে আরও একবার সরাসরি চিঠি লিখলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, “এই দামের হেরফের জনবিরোধী। এতে সাধারণ মানুষ আদৌ ঠিকমতো টিকা পাবেন কিনা, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। এই সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর পরিপন্থী।”

এদিকে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের পাশাপাশি, বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে ৬০০ টাকার বিনিময়ে ভ্যাকসিন দিতে রাজি বলে জানিয়েছে সেরাম ইনস্টিটিউটও। এ নিয়েও মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, “এতটা বৈষম্য অর্থহীন। এ নিয়ে কালোবাজারির পথ প্রশস্ত হবে।”

গতকাল, বুধবার সেরাম ইনস্টিটিউটের তরফে ঘোষণা করা হয়, রাজ্য সরকারগুলিকে কোভিশিল্ডের প্রতিটি ডোজ ৪০০ টাকায় বিক্রি করা হবে। বেসরকারি হাসপাতালগুলির ক্ষেত্রে কোভিশিল্ডের প্রতি ডোজের দাম ধার্য করা হয়েছে ৬০০ টাকা। যদিও কেন্দ্র প্রতিটি ডোজ পাবে মাত্র ১৫০ টাকায়।

সেরামের এই ঘোষণার জন্যও কেন্দ্রকেই দায়ী করেছেন তিনি। বৈষম্যের এমন ঘটনা ভারতের ইতিহাসে নজিরবিহীন ও ‘যুব-বিরোধী’ বলেও দাবি করেছেন মমতা। পাশাপাশি তিনি ঘোষণা করেছেন, ২ মে ভোটের ফলপ্রকাশের পরে তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসছে এবং ৫ মে থেকে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সমস্ত নাগরিককে বিনামূল্যে করোনা টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করবে রাজ্য সরকার।
You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More