সোনার মাস্কে রুপোর সুতো, অর্ডার দিচ্ছেন পয়সাওয়ালারা

কোয়েম্বাত্তুরের স্বর্ণশিল্পী রাধাকৃষ্ণণ সুন্দরম আচার্য সংবাদসংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন, ১৮ ক্যারাট সোনা দিয়ে তৈরি হয়েছে এই মাস্ক। এমন সব মাস্ক আদৌ ভাইরাস আটকাতে সক্ষম কিনা জানা নেই তবে অনেকেই বিয়ে বাড়ি বা অন্য অনুষ্ঠানে পরার জন্য আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মাস্ক এখন অপরিহার্য। করোনা আক্রান্ত বিশ্বে সেই অপিরহার্য মাস্কই হয়ে উঠছে ফ্যাশন স্টেটমেন্ট। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণ কাপড়ে তৈরি মাস্ক ব্যবহারই সবচেয়ে ভাল। কিন্তু সৌখিনদের মন ভরছে না। তাই ইতিমধ্যেই বাজারে হাজারো ডিজাইনের মাস্ক। সর্বক্ষণের সঙ্গি সেই মাস্ক নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষারও শেষ নেই। একই সঙ্গে মাস্ককে স্টাইল বানাতে মরিয়া অনেকে।

আরও পড়ুন

সরকার থাকলে সারা জীবন ফ্রিতে রেশন, পড়াশোনা: একুশের মঞ্চ থেকে অঙ্গীকার মমতার

এবার তেমনই এক মহার্ঘ মাস্কের খোঁজ মিলল। কোয়েম্বাত্তুরের স্বর্ণশিল্পী রাধাকৃষ্ণণ সুন্দরম আচার্য বানিয়েছেন অপরূপ সুন্দর এক সোনার মাস্ক। শুধু সোনা দিয়ে তৈরি করাই নয়, সেই মাস্ক সেলাই করা হয়েছে রুপোর সুতো দিয়ে। দাম? আচার্য জানিয়েছেন, প্রতিটি সোনার মাস্কের দাম পড়ছে পৌনে তিন লাখ টাকা। একটু সস্তার জন্য তিনি ১৫ হাজার টাকা দামের একটা রুপোর মাস্কও বানিয়েছেন। ইতিমধ্যেই নাকি তিনি ন’টি সোনার মাস্কের অর্ডার পেয়েছেন এবং সেগুলি বানানো শুরু করে দিয়েছেন। জানিয়েছেন, ধনী সৌখিনরাই অর্ডার দিচ্ছেন।

কোয়েম্বাত্তুরের স্বর্ণশিল্পী রাধাকৃষ্ণণ সুন্দরম আচার্য সংবাদসংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন, ১৮ ক্যারাট সোনা দিয়ে তৈরি হয়েছে এই মাস্ক। এমন সব মাস্ক আদৌ ভাইরাস আটকাতে সক্ষম কিনা জানা নেই তবে অনেকেই বিয়ে বাড়ি বা অন্য অনুষ্ঠানে পরার জন্য আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

এটা কিন্তু প্রথম নয়। এর আগে পুণের এক ব্যক্তিকে সোনার মাস্ক পরে রাস্তায় দেখা গিয়েছিল। পুণের পিম্পরি চিঞ্চওয়াড় এলাকার বাসিন্দা শঙ্কর কুরদে জানিয়েছিলেন, “সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা ভিডিওতে একজনকে রুপোর মাস্ক পরতে দেখেছিলাম। তখন এই আইডিয়া মাথায় আসে যে একটা সোনার মাস্ক বানালে কেমন হয়। আমি সোনার গয়না পরতে খুবই ভালবাসি। ভাবনা মাথায় আসতেই পরিচিত এক স্বর্ণকারের সঙ্গে কথা বলি। এক সপ্তাহের মধ্যে উনি আমায় সোনার মাস্ক বানিয়ে দেন।”

শুধু কি তাই, সুরাটের একটি গয়নার দোকানে পাওয়া যাচ্ছে হিরের মাস্ক। আমেরিকান ডায়মন্ড এবং সত্যির হিরে, দুই দিয়ে খোদাই করা মাস্কই পাওয়া যাচ্ছে সুরাটের ওই গয়নার দোকানে। সেই দোকানের মালিক দীপক চোকসি জানিয়েছেন, হিরের সঙ্গে থাকছে সোনার ব্যবহারও।

এই সব দেখেই সোনার মাস্ক পরে শিরোনামে আসেন ওড়িশার অলোক মহান্তি। প্রায় ১০০ গ্রাম সোনা দিয়ে মাস্ক বানিয়েছেন কটকের ওই বাসিন্দা। একটি এন-৯৫ মাস্কের উপরে সোনা দিয়ে মুড়িয়ে নতুন মাস্ক তৈরি হয়। দাম প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More