গুজরাতে ছ’টি পুরসভায় ভোটগণনা মঙ্গলবার, নজর সারা দেশেরই

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কিছুদিন আগেই পাঞ্জাবে পুরভোটে ভরাডুবি হয়েছে বিজেপির। তারপরে গত ২১ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নিজের রাজ্য গুজরাতে ছ’টি পুরসভায় ভোট হয়েছিল। মঙ্গলবার সেখানে গণনা হবে। পাঞ্জাবে পুরভোটে যেমন কৃষক আন্দোলনের প্রভাব পড়েছিল, গুজরাতে তেমন হওয়ার সম্ভাবনা কম। কিন্তু দীর্ঘদিন ওই রাজ্যে ক্ষমতায় আছে বিজেপি। ফলে সেখানকার ভোটে মানুষের সরকারবিরোধী মনোভাবের প্রতিফলন দেখা যেতে পারে। গুজরাতে গেরুয়া ব্রিগেডের জনসমর্থন কতদূর অটুট আছে তা বোঝা যাবে পুরভোটের ফলাফলে। সেজন্য ফলাফলের দিকে নজর রাখছে সারা দেশ।

গুজরাতে যে ছ’টি পুরসভায় ভোট হয়েছিল, তার মধ্যে আছে আমেদাবাদ ও ভদোদরার মতো বড় শহর। এছাড়া রাজকোট, সুরাট, ভাবনগর ও জামনগরে ভোট হয়েছিল। এদিন সকাল ন’টায় শুরু হয়েছে গণনা। মোট ৫৭৬ টি আসনে ভোট হয়েছিল। এর আগের ভোটে ছ’টি পুরসভাতেই জয়ী হয়েছিল বিজেপি।

সোমবার রাজ্য নির্বাচন কমিশনের সচিব এম ভি যোশি বলেন, “মঙ্গলবার সকাল ন’টা থেকে ছ’টি শহরের বিভিন্ন স্থানে গণনা হবে। সাধারণ মানুষ আমাদের ওয়েব সাইটে লাইভ আপডেট পাবেন।” নির্বাচন কমিশন জানায়, রবিবার সকাল সাতটা থেকে সন্ধ্যা ছ’টা অবধি গণনা হয়েছিল। ভোট দিয়েছেন ৪৬.০৮ শতাংশ মানুষ। আমেদাবাদে ভোট পড়েছে সবচেয়ে কম। সেখানে ভোটারদের ৪২.৫১ শতাংশ ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। জামনগরে ভোট পড়েছে সবচেয়ে বেশি। সেখানে ৫৩.৩৮ শতাংশ মানুষ ভোট দিয়েছেন। রাজকোটে ৫০.৭২ শতাংশ, ভাবনগরে ৪৯.৪৬ শতাংশ, ভদোদরায় ৪৭.৮৪ শতাংশ এবং সুরাটে ৪৭.১৪ শতাংশ মানুষ ভোট দিয়েছেন।

রাজ্য নির্বাচন কমিশন বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, ছ’টি শহরে মোট ভোটারের সংখ্যা ১ কোটি ১৪ লক্ষ। তাঁদের মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৫২.৮৩ লক্ষ। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি গুজরাতে ৮১ টি পুরসভা, ৩১ টি জেলা পঞ্চায়েত এবং ২৩১ টি তালুক পঞ্চায়েতে ভোট হবে।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি পাঞ্জাবে পুরভোটের ফল প্রকাশিত হয়। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ওই ভোট হয়েছিল। মোট ভোটারদের ৭১.৩৯ শতাংশ ভোট দিয়েছিলেন। নতুন তিনটি কৃষি আইনের বিরুদ্ধে যে রাজ্যগুলিতে জোরদার আন্দোলন হচ্ছে, পাঞ্জাব তার মধ্যে অন্যতম। মোট ৯২২২ জন প্রার্থী ছিলেন। তাঁদের মধ্যে নির্দল ছিলেন ২৮৩২ জন। রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক প্রার্থী দিয়েছিল কংগ্রেস। তাদের প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ২০৩৭। কৃষি আইন নিয়ে পাঞ্জাবে রীতিমতো চাপে পড়েছে বিজেপি। তাদের প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ১০০৩। এবার শিরোমণি অকালি দল এককভাবে লড়াই করছে। তারা মোট ১৫৬৯ জন প্রার্থী দিয়েছিল।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More