হাওয়ায় ৬ ফুটের বেশি দূরত্বেও ছড়াতে পারে করোনা, দাবি মার্কিন সংস্থার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোভিডের ভাইরাস বাতাসে ছড়ায়, প্রায় এক মাস আগেই জানিয়েছিল ল্যানসেটের গবেষণা। এবার ভাইরাসের গতি প্রকৃতি নিয়ে আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক স্বাস্থ্য সংস্থা। তাতেই আরও একবার স্পষ্ট হয়ে গেল কোভিড সংক্রমণ রুখতে সামাজিক দূরত্ব বিধি কঠোরভাবে পালন করা কতটা জরুরি।

শ্বাসপ্রশ্বাসের সময় অতি ক্ষুদ্র কণার আকারে করোনার ভাইরাস বাতাসে মিশে যায়। কিন্তু একজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির ৩ থেকে ৬ ফুটের মধ্যেই সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা থাকে সবচেয়ে বেশি। এই দূরত্বের মধ্যেই ভাইরাসের ঘনত্ব এবং সক্রিয়তা বেশি থাকে, এমনটাই দাবি করেছেন আমেরিকার সেন্টারস ফর ডিসিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের গবেষকরা।

তবে ৬ ফুটের বাইরের পরিসর যে একেবারে নিরাপদ তা কিন্তু নয়। আরও দূরেও ছড়ায় ভাইরাস। সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যায়।

ভাইরাসটি যেমন শ্বাসপ্রশ্বাসের মাধ্যমে ছড়াতে পারে, তেমনি ছোঁয়াছুঁয়িতেও সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, “মানুষ কথা বলতে গিয়ে বা হাঁচি, কাশি এমনকি সাধারণ শ্বাস নিতে গিয়েও ড্রপলেট ছড়ায়। তাতে ভাইরাস থাকে। দূরত্ব থাকলে সংক্রমণের ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়।”

ভারতে করোনা পরিস্থিতি মোটেই স্বস্তিদায়ক নয়। প্রতিদিনই লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। হাসপাতাল গুলিতে বেডের অভাবে অনেক ক্ষেত্রে বিনা চিকিৎসাতেই মানুষ মরছেন। মৃতদেহের স্তুপ জমছে শ্মশানে, কবরস্থানে। হাহাকার দেখা দিচ্ছে অক্সিজেনেও। কিন্তু এখনও এদেশে সম্পূর্ণ লকডাউনের পথে হাঁটেনি কেন্দ্র সরকার।

যদিও কেন্দ্রের অপেক্ষা না করে ইতিমধ্যে একাধিক রাজ্যে ঘোষণা করা হয়েছে লকডাউন। নাইট কার্ফ্যুও জারি হয়েছে। এখনও সামাজিক দূরত্ব বিধি না মানলে যে করোনা থেকে রেহাই পাওয়ার সম্ভাবনা নেই, মার্কিন সংস্থার রিপোর্টে আরও একবার উঠে এল সেই বার্তাই।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More