লম্বা লাইন, বারাসত-আসানসোলে খোলা মদের দোকান! ভিড় হটাতে পুলিশের লাঠি

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বারাসত, আসানসোল:  লকডাউন ঘোষণা হতেই মদের দোকানে লম্বা লাইন, সুরাপ্রেমীদের শেষে লাঠিপেটা করে হটিয়ে দিল পুলিশ। এবছর লকডাউনে খোলা থাকছে না মদের দোকান। ঘোষণা হতেই সুরা প্রেমীদের মাথায় হাত। বাড়িতে স্টক করতে তড়িঘড়ি সবাই গিয়ে লাইন দিলেন মদের দোকানে। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে মদের দোকানের সামনে উপচে পড়া ভিড় এদিন প্রকাশ্যে এল। সোশ্যাল মিডিয়াতেও ভাইরাল হল সুরা সংগ্রহের কিছু মুহুর্ত।

সে তো গেল লকডাউনের আগের দিন, কিন্তু সেখানেই শেষ নয়। দেখা গেল, নিয়ম অমান্য করে এদিন বারাসাতের অনেক জায়গায় খোলা হয়েছে মদের দোকান। দোকানের সামনে যথারীতি লম্বা লাইন। লকডাউনের প্রথমদিনও বারাসাতের দক্ষিণপাড়া ডাকবাংলো ও টালিখোলা এলাকায় মদের দোকানে ছিল উপচে পড়া ভিড়।

বারাসাত থানার পুলিশটহল দিতে এসে লাঠিচার্জ করে সেই দোকান বন্ধ করে দিল। পুলিশ দেখেই এদিন হুড়োহুড়ি পড়ে যায় মদ কিনতে আসা জনতার মধ্যে। কেউ সাইকেল কেউ বা বাইক ফেলে চম্পট দেয়।

পালানোর সময় একে অন্যের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কিতে রীতিমত মাটিতে পড়ে যান সুরাপ্রেমীরা। এতদিন দুপুর ৩টে থেকে সন্ধে ৭টা অবধি খোলা থাকত মদের দোকান। গতকাল ভিড় সামলানো দায় হয়ে ওঠায় রাত ৮টার পরও খোলা ছিল একাধিক মদের দোকান। সেগুলো বন্ধ করতেই পুলিশ লাঠিচার্জ করতে বাধ্য হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, মদ বিক্রেতা ও ক্রেতারা কেউই সরকারি নিয়ম মানছিল না তাই এই হস্তক্ষেপ। আসানসোলেও জায়গায় জায়গায় একই চিত্র। দেখা যাচ্ছে মদের দোকানে লম্বা লাইন। আসানসোলে আকাঙ্খা মোড়ে একটি মদের দোকানে এমনই হুড়োহুড়ি যে সামাজিক দূরত্ববিধি মানার কথাও কারও খেয়ালে নেই। পুলিশকে হস্তক্ষেপ করতে হল সেখানেও।

পুলিশের তরফ থেকে সামাজিক দূরত্ব মেনে এদিন লাইনে দাঁড়াতে বলা হয় সুরাপ্রেমীদের। কালই ছিল সুরা সংগ্রহের শেষদিন, আজ থেকে অবশ্য এধরনের কোনও ঘটনা প্রশ্রয় দেবেনা প্রশাসন, কড়া নির্দেশ জারি।

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More