ডিএমকে হিন্দুবিরোধী, তাদের পরাজিত করতেই হবে, তামিলনাড়ুতে ভাষণ বিজেপির তেজস্বী সূর্যের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : প্রত্যেক তামিল হলেন গর্বিত হিন্দু। কিন্তু ডিএমকে এক ক্ষতিকারক, খারাপ মতাদর্শে বিশ্বাসী। তারা হিন্দুবিরোধী। রবিবার রামিলনাড়ুর ভোটারদের উদ্দেশে এমনই বলেন বিজেপির যুব নেতা তেজস্বী সূর্য। তিনি তামিলনাড়ুর মানুষের কাছে আবেদন জানান, ডিএমকে-কে পরাস্ত করতে হবে। তাঁর দাবি, একমাত্র বিজেপিই দেশের প্রতিটি আঞ্চলিক ভাষাকে সম্মান করে। তাদের বিকাশের জন্য চেষ্টা করে।

আর কয়েকমাস পরেই ভোট হবে তামিলনাড়ুতে। তার আগে চেন্নাইতে ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার সভায় তেজস্বী সূর্য বলেন, “তামিলনাড়ুর মাটি পবিত্র। কিন্তু ডিএমকে হিন্দুদের বিরোধী। তাদের পরাজিত করতেই হবে।” বিজেপির সাংসদ তেজস্বী বলেন, আমাদের দল তামিলনাড়ু ও তামিল ভাষার যথার্থ প্রতিনিধি। তাঁর দাবি, তামিল ভাষাকে যদি রক্ষা করতে হয়, বিজেপিকে জেতাতে হবে। কন্নড় ভাষাকে যদি রক্ষা করতে হয়, তাহলেও বিজেপিকে জয়ী করতে হবে।

ডিএমকে-র সমালোচনা করে তেজস্বী সূর্য বলেন, এম কে স্ট্যালিনের দল কেবল একটি পরিবারের স্বার্থ দেখে। কিন্তু বিজেপি দলের সকলকে একটি পরিবারের মতো দেখে।

তামিলনাড়ুতে বিজেপির জোটসঙ্গী এআইএডিএমকে দলে ভোটের আগে রীতিমতো অশান্তি শুরু হয়েছে। কিছুদিন আগে জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জে জয়ললিতার সঙ্গী শশিকলা। এআইএডিএমকে-র শীর্ষ পদটি দখল করার জন্য তিনি গিয়েছেন আদালতে। তাঁর অভিযোগ, তামিলনাড়ুর বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী ই পালানিস্বামী এবং উপমুখ্যমন্ত্রী ও পনিরসেলভাম অন্যায়ভাবে দলের নেত্রীর পদটি তাঁর থেকে কেড়ে নিয়েছেন।

জয়ললিতার মৃত্যুর পরেই দলের শীর্ষস্থানটি দখল করেছিলেন শশীকলা। খুব অল্প সময়ের জন্য মুখ্যমন্ত্রীও হয়েছিলেন। কিন্তু এরপরে দুর্নীতির মামলায় তাঁকে জেলে যেতে হয়। চার বছর জেলে থাকার পরে তিনি মুক্তি পেয়েছেন। জেলে যাওয়ার আগেই ২০১৭ সালে পালানিস্বামী ও পনিরসেলভামের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন শশীকলা। অভিযোগ ছিল, তাঁরা দলের শীর্ষপদ থেকে শশীকলাকে সরানোর জন্য সাধারণ পরিষদের বৈঠক ডেকেছেন। জেল থেকে বেরোনর পর তিনি আদালতে নতুন করে আবেদন জানিয়েছেন। ওই মামলার শুনানি হবে ১৫ মার্চ।

জেলে যাওয়ার আগে শশীকলা নিজেই তাঁর অনুগামী পালানিস্বামীকে মুখ্যমন্ত্রী পদে মনোনীত করেন। পরে পালানিস্বামী শশীকলার বিরোধী পনিরসেলভামের সঙ্গে হাত মেলান।

গত জানুয়ারিতে পালানিস্বামী বিজেপির সঙ্গে একদফা বৈঠকের পরে ঘোষণা করেন, শশীকলাকে আর দলে ফিরিয়ে নেওয়া হবে না। কিন্তু শশীকলা জেল থেকে বেরোনর পরে পালানিস্বামী তাঁর সম্পর্কে কোনও মন্তব্য করেননি। বরং তিনি শশীকলার ভাইপো টি টি ভি দীনাকরণের সমালোচনা করেন। অনেকের ধারণা হয়েছিল, পালানিস্বামী শশীকলার সঙ্গে একটা বোঝাপড়া করে নিতে চান। এডিএমকে সমর্থকদের কাছে শশীকলা চিন্নাম্মা (কাকিমা) নামে পরিচিত। জয়ললিতাকে তাঁরা বলতেন ‘আম্মা’।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More