তৃণমূল নেতার ভাই বিকাশকে গ্রেফতার করল ইডি, বেআইনি কয়লা পাচারে বড় ধরপাকড়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বেআইনি কয়লা পাচার কাণ্ডে যুব তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক বিনয় মিশ্রর ভাই বিকাশ মিশ্রকে গ্রেফতার করল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। তাকে দিল্লিতে গ্রেফতার করা হয়েছে। আপাতত ৬ দিন ইডির হেফাজতে থাকবে বিকাশ।

ওদিকে বিনয় মিশ্র এখনও পলাতক। রাজ্য রাজনীতিতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ এই তৃণমূল নেতাকে সিবিআই ও ইডি দুই কেন্দ্রীয় এজেন্সিই খুঁজছে। তার বিরুদ্ধে রেড কর্নার নোটিস জারি হয়েছে।

অভিযোগ, বেআইনি কয়লা ও গরু পাচার চক্রে বড় ভূমিকা ছিল বিনয় ও তার ভাই বিকাশের। গোয়েন্দা কর্তাদের কথায়, বিনয় অত্যন্ত প্রভাবশালী ছিলেন। এতোটাই যে যুব তৃণমূলের নেতা হলেও ডায়মন্ড হারবার পুলিশের দু’জন কনস্টেবলকে তার নিরাপত্তার জন্য নিয়োগ করা হয়েছিল। প্রসঙ্গত, ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ হলেন যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

বেআইনি কয়লা পাচারের টাকা বিদেশে পাঠানো হয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তের পর মনে করছেন সিবিআই ও ই়ডির গোয়েন্দা। সেই সূত্র ধরে কিছুদিন আগে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। রুজিরার বোন মেনকা গম্ভীরেরও বিদেশে অ্যাকাউন্ট রয়েছে। অভিযোগ, তাঁর অ্যাকাউন্টেও টাকা ট্রান্সফার হয়েছে। এ ব্যাপারে মেনকা গম্ভীরের বাড়িতেও হানা দিয়েছিল সিবিআই। গতকাল সোমবার মেনকা গম্ভীরের স্বামী অঙ্কুশ অরোরা ও শ্বশুর পবন অরোরাকে সাত ঘন্টা ধরে জেরা করেছেন কেন্দ্রীয় এজেন্সির গোয়েন্দারা। তাদের আবার জেরার জন্য ডাকা হবে বলে খবর।

বেআইনি কয়লা পাচার চক্রের সূত্র ধরে মঙ্গলবারও কলকাতায় একাধিক জায়গায় সিবিআই তল্লাশি চলেছে। বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর বাড়িতে সেই তল্লাশি চালানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

কেন্দ্রীয় তদন্ত এজেন্সির এই সক্রিয়তা নিয়ে মঙ্গলবার অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, রাজনীতিক, ব্যবসায়ী এমনকি আমলাদের হেনস্থা করা হচ্ছে। এজেন্সি দিয়ে ভয় দেখিয়ে ভোট করাতে চাইছেন অমিত শাহরা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More