আদুল গায়ের এই একরত্তি মেয়েকে চেনেন? ন্যাপি বদলে দিচ্ছেন অমিতাভ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: “এক দিন অ্য়াইসি থি, পাতা হি নেহি চলা কাব অ্যায়সি হো গ্য়ায়ি”…

ফেলে আসা স্মৃতি কত মধুর! আর সেই স্মৃতির ক্যানভাসে যদি ধরা থাকে বাবা-মেয়ের স্নেহ-মমতার টুকরো টুকরো ছবি, তাহলে সেই ক্যানভাস হয়ে ওঠে তার রূপ-বৈচিত্র্যে অনন্য়। হারিয়ে যাওয়া সেই ক্যানভাসের পাতা উল্টে এমনই কিছু রূপ-রস তুলে এনেছেন বলি-শাহেনশা অমিতাভ বচ্চন। মেয়ের শৈশবের এমন এক বিরল মুহূর্তের ছবি শেয়ার করেছেন নিজের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে, যা দেখে ধন্য ধন্য করেছেন নেটিজেনরা।

‘এ মা আমি এমন ছিলাম!’ নিজের ছোটোবেলার ছবি দেখে হামেশাই আমরা এমন বলে থাকি।  নিজের শৈশবের ছবি দেখে অমিতাভ-কন্যা শ্বেতা কিন্তু এমনটা বলেননি। বরং লজ্জায় লাল হয়ে তিনি ছবির নিচে কমেন্ট করেছেন, “ওহ মাই গড! পা এটা খুবই অস্বস্তিকর!”

সমুদ্র সৈকতে একরত্তি শ্বেতার ন্যাপি বদলে দিচ্ছেন অমিতাভ। ছোট্ট শ্বেতার পরনে শুধু তার সাদা ন্যাপি ছাড়া আর কিচ্ছুটি নেই। আদরের ‘পা’-এর সঙ্গে এই ছবি দেখে ৪৫ বছরের শ্বেতা বচ্চন নন্দার মুখে হাসি ফুটেছে ঠিকই, তবে দুই সন্তানের মা নিজের এমন আদুল গায়ের ছবি দেখে যে লজ্জাও পেয়েছেন, সেটা বলাই বাহুল্য। নিজের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে মেয়ের সঙ্গে নানা রকম ছবি পোস্ট করে থাকেন ‘বিগ বি’।

কখনও স্ত্রী জয়া বচ্চনের সঙ্গে শ্বেতার স্কুলবেলার ছবি, আবার কখনও ছোট্ট শ্বেতার হাঁটতে শেখার ছবি। ছবির ক্যাপশনেও ঝরে পড়ে মেয়ের প্রতি সমস্ত স্নেহ-অনুরাগ। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ইভেন্ট, শ্বেতার সঙ্গে বহুবার অন ক্যামেরায় দেখা গেছে বিগ বি-কে। ‘কফি উইথ করণ’ বা ‘কৌন বনেগা ক্রোড়পতি’র মতো শো-এও অনস্ক্রিন দেখা গিয়েছে বাবা-মেয়েকে।

শ্বেতা একাধারে মডেল, লেখিকা, সাংবাদিক, টিভি সঞ্চালিকা। দিল্লির ব্যবসায়ী নিখিল নন্দাকে বিয়ে করেন ১৯৯৭ সালে। তাঁদের দুই সন্তান নভ্যা এবং অগস্ত্য। এক আগে ফ্যাশনের মঞ্চে একাধিক বার দেখা গিয়েছে শ্বেতাকে। আদ্য়োপান্ত ফিল্মি পরিবার থেকে হয়েও সরাসরি রূপোলি পর্দায় আত্মপ্রকাশ করার কথা কোনও দিনও ভাবেননি শ্বেতা। বরং লেখিকা, সাংবাদিক বিসেবেই বরাবর লাইম লাইটে থেকেছেন। গত বছর তাঁর উপন্যাস ‘প্যারাডাইস টাওয়ার্স’ প্রকাশিত হয়।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More