স্মৃতি ইরানি কবিতার হাত ধরেই ফিরে গেলেন মেমরি লেনে! স্মৃতি ভাগ করে নিলেন নেটিজেনদের সঙ্গে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অভিনেত্রী থেকে নেত্রী, সবেতেই নিজেকে প্রমাণ করেছেন স্মৃতি ইরানি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সভার এই মন্ত্রী কেবল অভিনয়, বা রাজনীতি নিয়েই থাকেন না! তাঁর ঝোঁক রয়েছে সাহিত্যেও। স্মৃতির শেষ ইনস্টাগ্রাম পোস্ট কিন্তু আপনাকে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে পারে ফেলে আসা স্মৃতির পাতাতে। তিনি একটি ভিডিও পোস্ট করেন ইনস্টাগ্রামে যেখানে ‘মেরা ছোটা সা মহল্লা’ নামে একটি কবিতা পাঠ করতে দেখা যায় একজন মহিলাকে। কবিতাটির প্রতিটা শব্দ এতটা নিবিড় যা ভীষণভাবে আকৃষ্ট করেছে সকলকে, ছুঁয়ে গেছে সকলের প্রাণ।

ভিডিওটি ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করে স্মৃতি লেখেন, “সুন্দর উপস্থাপনা খুঁজে পেয়েছি। এখানে যে জীবনের বর্ণনা দেওয়া হয়েছে, সেটা কাটানোর সুযোগ আমাদের অনেকেরই হয়েছে।” এরই পাশাপাশি তিনি লেখেন যে কে এই কবিতাটি পাঠ করছেন তিনি সেটা জানেন না, কিন্তু কবিতার প্রতিটা শব্দে তিনি মুগ্ধ হয়ে গেছেন। তাই ইরানি দেবী ইনস্টাগ্রামে থাকা তাঁর সকল অনুরাগীদের অনুরোধ করেন এই কবিকে খুঁজে দিতে। তখনই খোঁজ পাওয়া যায় ভিডিওতে থাকা ভদ্রমহিলা, শ্রীমতী জয়া সরকারকে।

এই কবিতাতে উঠে এসেছে তাঁদের সময়ের ছোটবেলার জীবন। যেখানে মাঠে বাচ্চারা খেলত, পাড়ার গলিতে খেলত, পিপুল গাছে উঠতো। এই কবিতা আবেগে ভাসিয়ে দিয়েছে সকলকে। স্মৃতি ইরানি নিজের পোস্টে জানতে চেয়েছিলেন কে লিখেছেন এমন হৃদয়গ্রাহী কবিতা! সেই লেখিকা জয়াকে খুঁজে পেয়ে বেজায় আপ্লুত মন্ত্রী।

ইনস্টাগ্রামে এই ভিডিওটি ৭০ হাজারেরও বেশিবার শেয়ার হয়েছে। সেই সঙ্গে এক ঝটকাতে বেড়ে গেছে জয়া সরকারের পপুলারিটি। জয়া স্মৃতি ইরানিকে ধন্যবাদ জানিয়ে লেখেন, “প্রিয় স্মৃতি জি, আমি ভীষণই আনন্দিত যে ভিডিওটি আপনার ভাল লেগেছে। আপনি সেটা সকলের সঙ্গে ভাগ করে নিয়েছেন।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More