ফসল বেচে উঠছে না বাজারের গাড়িভাড়াও! খেতভরা বাঁধাকপি গরুকে খাইয়ে দিলেন কৃষক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: খেত ভরা বাঁধাকপি চিবিয়ে খাচ্ছে গরু! কৃষকও আছেন সেই খেতেই, বাধা দিচ্ছেন না কোনও। বরং তিনিই কষ্টে ফলানো মাঠভরা ফসল খাইয়ে দিচ্ছেন গরুকে!

ময়নাগুড়ির এমন ঘটনার কথা জানাজানি হওয়ার পরেই খোঁজ নিতে শুরু করেন অনেকে। জানা যায়, ফসলের দাম না পেয়ে গরুকে দিয়ে বাঁধাকপি খাইয়ে দিচ্ছেন ময়নাগুড়ির এক কৃষক। ফসলের ন্যূনতম দাম না পেয়েই তিনি এমনটা করছেন বলে জানা যায় স্থানীয় সূত্রে।

স্থানীয় সূত্রের খবর, সম্প্রতি স্বনির্ভর গোষ্ঠী থেকে বেশ কিছু টাকা ধার নিয়ে মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলেন ময়নাগুড়ির মৌয়ামারি এলাকার বাসিন্দা হাসান আলি। এর পরে বীজ, সার, শ্রমিক-সহ প্রায় হাজার ১৫ টাকা আরও খরচ করে দেড় বিঘে জমিতে প্রায় আট হাজার কপির চারা লাগিয়েছিলেন। ভেবেছিলেন বিয়ের জন্য নেওয়া ঋণ শোধ করবেন চাষ করে। খুব ভাল ফলনও হয়েছিল কপির। হাসান আলি আশা করেছিলেন, সেই কপি বিক্রি করে মেয়ের বিয়ের জন্য নেওয়া ঋণের কিস্তি শোধ করবেন ধীরে ধীরে।

কিন্তু কপি পাকার পরে তেমন করে আশা পূরণ হল না। অভিযোগ, বর্তমানে জলপাইগুড়ি বাজারে কমপক্ষে পাঁচ টাকা থেকে সাত টাকা কিলো দরে বাঁধাকপি বিক্রি হলেও, পাইকারি দরে প্রতি কিলো এক টাকার বেশি পাচ্ছেন না কৃষকেরা।

কৃষকেরা জানিয়েছেন, চার কুইন্টাল বাঁধাকপি খেত থেকে হাটে নিয়ে যাতে ভ্যান ভাড়া লাগে কম করে দেড়শো টাকা। সঙ্গে কুলি-ভাড়া সহ আরও আনুষাঙ্গিক খরচ একশো টাকা। এ দিকে কপি বিক্রি হচ্ছে মাত্র এক টাকা প্রতি কিলো! এমন পরিস্থিতিতে চরম হতাশায় আক্রান্ত চাষিরা।

হাসান আলি জানান, এই অবস্থায় বাঁধা কপি হাটে নিয়ে গেলে দাম পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি বলেন, “ভ্যান ভাড়াই ওঠে না, লাভ দূরের কথা। উল্টে পকেট থেকে টাকা চলে যাচ্ছে। কী করব, তাই বাধ্য হয়ে গরুকে দিয়ে খাইয়ে দিচ্ছি। পরিস্থিতি লিখিত ভাবে সরকারের কাছে জানাব।”

ময়নাগুড়ির বিডিও এলসি শেরপা টেলিফোনে জানান, ফসলের দাম না পেয়ে কৃষক গরু দিয়ে তার ফসল খাইয়ে দিচ্ছেন, এটা অত্যন্ত বেদনাদায়ক। “আমি আপনার কাছ থেকে এই খবর প্রথম শুনলাম। আমি কৃষি দফতরকে জানাচ্ছি। আমাকে জানালে আমি অনেক আগেই এর ব্যবস্থা নিতে পারতাম।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More