তন্ময়ের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে, জানিয়ে দিল সিপিএম

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রবিবার তখনও সব কেন্দ্রের গণনা শেষ হয়নি। তবে স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে বাম-কংগ্রেস শূন্য। ঠিক সেই সময়েই একটি টেলিভিশন চ্যানেলে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিলেন সিপিএম নেতা তথা এবারের ভোটে উত্তর দমদমের সিপিএম প্রার্থী তন্ময় ভট্টাচার্য। কার্যত আলিমুদ্দিনের দিকে কামান দেগেছিলেন সিপিএমের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর এই সদস্য। তা নিয়ে বিবৃতি দিল সিপিএম।

সিপিএমের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা সম্পাদক মৃণাল চক্রবর্তী একটি বিবৃতিতে জানিয়েছেন, তন্ময় ভট্টাচার্য ওই টক শোয়ে যা বলেছেন তা তাঁর ব্যক্তিগত মত। পার্টি পরিচালনা ও নেতৃত্বের বিষয়ে যা বলেছেন তন্ময় ভট্টাচার্য সে ব্যাপারে তাঁর বক্তব্য শুনে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

কী বলেছিলেন তন্ময়?

গতবারের উত্তর দমদমের সিপিএম বিধায়ক বলেন, “এই ব্যর্থতার দায় নেতৃত্বের। আমাদের নয়। নিচু তলার কর্মীদের নয়। লোকসভায় শূন্য হওয়ার পর কেউ দায় নেননি। বিধানসভায় হারের পর কেউ দায় নেবেন না। শুধু স্তালিন কপচাবেন তা হবে না। এটা স্তালিনের যুগ নয়।”

তিনি আরও বলেন, “দলের সর্বক্ষণের কর্মীরা চার-পাঁচ হাজার টাকা ভাতা পান। তাঁদের কেন দৈনিক মজুরির নিয়ম মেনে ২১ হাজার টাকা দেওয়া হবে না।”

আইএসএফের সঙ্গে জোট নিয়েও এক পলিটব্যুরোর সদস্যকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিলেন তন্ময়। সিপিএমের অনেকের মতে হেরে গেছেন বলেই এখন এসব বলছেন তিনি। সিপিএমের এক নেতা বলেন, ২০১৬ সালে বাংলায় কংগ্রেসের সঙ্গে আসন সমঝোতার পর যখন দিল্লি থেকে বলা হল এটা কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্তের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়, তার পরও কংগ্রেসের ডাকা মিছিলে একা হাজির হয়েছিলেন তন্ময়। সেই সময় দল তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে প্রকাশ্যে সমালোচনা করেছিল।

সিপিএমের অনেকে এও বলছেন, আসলে তন্ময়বাবুর নেতা যিনি, তিনিও নানান সময়ে দলীয় নেতৃত্বের সমালোচনা করেছেন। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য থাকাকালীন সেই নেতা সীতারাম ইয়েচুরিকে রাজ্যসভায় না পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রকাশ্যে বলেছিলেন, দিল্লির নেতাদের মাথায় ক্যাড়া পোকা আছে। তাঁরা সীতারামের জনপ্রিয়তাকে হিংসা করেন।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.