দীপালি সাহা বিজেপিতে, রটে গেল শিউলির কথা, শতরূপকে তুলোধনা কেশপুরের তৃণমূল প্রার্থীর

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুক্রবার দুপুরে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছেন। তারপর থেকেই টিকিট না পাওয়াদের ক্ষোভে জ্বলছে বাংলার উত্তর থেকে দক্ষিণ। অনেকে এর মধ্যে বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছেন। কিন্তু ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কাজের কাজটা সেরে ফেলেছেন বাঁকুড়ার সোনামুখীর গতবার পরাজিত তৃণমূল প্রার্থী দীপালি বিশ্বাস।

শনিবার বিজেপি দফতরে এসে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের হাত থেকে পদ্ম পতাকা নিয়েছেন দীপালিদেবী। তিনি বলেছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে মর্যাদা দেননি। এবার তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে কাজ করবেন।

কিন্তু এর মধ্যেই নাম বিভ্রাট ঘটে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। দীপালি সাহাকে শিউলি সাহা বলে চালিয়ে দেন কেউ কেউ। তাঁদের মধ্যে অন্যতম তরুণ সিপিএম নেতা শতরূপ ঘোষ। স্বাভাবিক ভাবেই সকলে ভ্রু কুঁচকেছিলেন। যাঁর নাম রয়েছে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় তিনিও বিজেপিতে যোগ দিলেন?

তোলপাড় পড়ে যায় পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার সাংবাদিকদের মধ্যে। শতরূপ সোশ্যাল মিডিয়ায় জনপ্রিয়। তাঁর বিভিন্ন পোস্ট ভাইরাল হয়। এদিন তিনি তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় কেশপুরের প্রার্থী হিসেবে শিউলি সাহার নামটা তালিকা থেকে ক্রপ করে লাল গোল দাগ দিয়ে ফেসবুকে পোস্ট করে লেখেন, “যখন একের পর এক তৃণমূল নেতা-নেত্রী ভোটে প্রার্থী হতে না পেরেই পরের দিন বিজেপিতে চলে যাচ্ছেন, তখন অনন্য নজির তৈরি করলেন তৃণমূলনেত্রী শিউলি সাহা। উনি ভোটে প্রার্থী হয়েও পরের দিন বিজেপিতে যোগ দিলেন।”

এ ব্যাপারে দ্য ওয়াল-এর তরফে শিউলিদেবীকে ফোন করা হলে কার্যত ফুঁসে ওঠেন তিনি। ফোন ধরেই বলেন, “আমি জানি আপনি কেন ফোন করেছেন। কে শতরূপ ঘোষ? শুনলাম দু’বার ভোটে হেরেছে। তিনি আমার নামে এসব অপপ্রচার করেছেন।” শিউলি আরও বলেন, “জেনে রেখে দিন, শিউলি সাহা বিক্রি হয় না। সিপিএমের রামেশ্বর দলুইকে আগেরবার এক লাখ ভোটে হারিয়েছিলাম। এবারও নিল করে নিলডাউন করিয়ে দেব। ভোটের পর এই অপপ্রচারের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থাও নেব।”

প্রতিক্রিয়া জানার জন্য সিপিএমের যুব নেতা শতরূপ ঘোষকে ফোন করা হয়েছিল। তিনি প্রথমেই মেনে নেন তাঁর দীপালি আর শিউলির নাম গুলিয়ে গিয়েছিল। তবে কটাক্ষ করে শিউলির উদ্দেশে এও বলেন, “উনি যদি আমায় একটা তালিকা করে দেন এবং নিশ্চিত করেন এই এই তৃণমূল নেতানেত্রীরা কখনও বিজেপিতে যাবেন না, তাহলে ভবিষ্যতে এই ধরনের ভুল আর হবে না।” ফেসবুক পোস্টটি সরিয়ে দিয়েছেন তিনি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.