পাক সীমান্তে উড়ে এল পায়রা, পায়ে বাঁধা সাঙ্কেতিক নম্বর! এফআইআর করে ভরা হল পাঞ্জাবের জেলে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এ যেন ইতিহাসের পাতা থেকে উঠে আসা একটুকরো রহস্য! পায়রার পায়ে বেঁধে প্রেমপত্র পাঠানোর কাহিনি বহুশ্রুত। পরে এই পায়রাকেই গুপ্তচর হিসেবে ব্যবহার করেছে বহু দল। এবার তেমনই ঘটনা সামনে এল ফের। খুব সাধারণ ঘটনা নয়, অভিযোগ, পায়রার পায়ে বেঁধে তথ্য পাচার করছে পাকিস্তান!

জানা গেছে, পাঞ্জাবের রোরানওয়ালা সেনাচৌকিতে একটি পায়রা ধরা পড়ে দিন তিনেক আগে। সেটির পায়ে একটি নম্বর লেখা কাগজ পপাওয়া গেছে। নম্বরটির তাৎপর্য এখনও বোঝা যায়নি, তবে পায়রাটিকে আটকানো হয়েছে। এমনকি তার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে!

পুলিশ জানিয়েছে, সেনা ক্যাম্পের সামনে ডিউটি করছিলেন নীরজ কুমার নামে এক সেনা কর্মী। হঠাৎই একটি সাদা-কালো পায়রা তাঁর কাঁধে এসে বসে। উড়ে যাওয়ার আগে তিনি সেটিকে ধরে ফেলেন। পায়রাটিকে পরীক্ষা করতে গিয়ে চমকে যান নীরজ। দেখেন তার পায়ের সঙ্গে আটকে রয়েছে একটি সাদা কাগজ। সঙ্গে সঙ্গে নীরজ তাঁর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানান।

এর পরেই পায়রাটিকে ক্যাম্পে নিয়ে গিয়ে খোলা হয় পায়ের কাগজটি। দেখা যায় তাতে একটি নম্বর লেখা আছে। তবে কী নম্বর, কোন উদ্দেশে লেখা ছিল সে সম্পর্কে সেনা বা পুলিশের তরফে বিস্তারিত কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। পায়রাটি সীমান্তের  ওপার থেকে পাঠানো হয়েছিল বলেই প্রাথমিক তদন্তে মনে করছে পুলিশ। এর পরেই আইন মেনে পায়রার বিরুদ্ধে একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে থানায়।

গত বছর মে মাসে জম্মু কাশ্মীরের কাঠুয়া জেলায় পাক সীমান্ত থেকে এমনই একটি পায়রা ধরা পড়েছিল। সেবার সন্দেহ করা হয়েছিল, পাকিস্তান গুপ্তচরবৃত্তির জন্য এই পায়রাগুলিকে প্রশিক্ষণ দেয়। সে বারও পায়রার পা থেকে এক গোপন সংকেত উদ্ধার করা হয়। কিন্তু তারপরই পায়রাটি ফের পাকিস্তানের দিকে উড়ে পালায়।

এবারও তেমনই ঘটনা ঘটেছে। তবে পায়রাটি আপাতত ভারতের জেল হেফাজতে রয়েছে। সেটিকে নিয়ে কী করা হবে, তা জানা যায়নি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More