করোনাকালে ঘরে বসেই পেতে পারেন ফ্লোটিং হোটেলের ঘরোয়া রান্না, জেনে নিন কীভাবে

0

কিছুদিন আগেই সাড়ম্বরে উদ্বোধন হয়ে গেল এশিয়ার সর্ববৃহৎ ফ্লোটিং হোটেল পোলো ফ্লোটেলের। কলকাতার পুরনো ফ্লোটেল কিনে নিয়ে তা নবরূপে সংস্করণ করেছে নর্থ ইস্টের বিখ্যাত পোলো টাওয়ারস গ্রুপ। এই করোনাকালে দূরত্ব বজায় রেখে, ভিড় এড়িয়ে খোলা আকাশের নীচে যেকোনও গেটটুগেদার এই প্রজন্মের প্রথম পছন্দ গঙ্গায় ভাসমান এই নতুন হোটেল। পোলো ফ্লোটেলের যাবতীয় খুঁটিনাটি থেকে শুরু করে গ্রাহকদের জন্য কী কী সুযোগসুবিধা রয়েছে তা নিয়ে এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার দিলেন হোটেলের কলকাতা শাখার জেনারেল ম্যানেজার সৌমেন হালদার। আলাপে চৈতালি দত্ত।নর্থ ইস্টের বিখ্যাত পোলো টাওয়ারস গ্রুপের কলকাতার এটি কত নম্বর হোটেল?
সৌমেন: এটি পোলো টাওয়ারস গ্রুপের ন’ নম্বর হোটেল।
এই গ্রুপের অন্যান্য হোটেল কোথায় কোথায় রয়েছে?
সৌমেন: কলকাতা ছাড়াও চেরাপুঞ্জি, আগরতলা, এলাহাবাদ, জব্বলপুর, শিলং, নীরমহল, টুরায় মোট নয় টি হোটেল প্রপার্টি ছাড়াও শিলংয়ের দুটো এঁদের ক্যাফে প্রপার্টি রয়েছে।আপনি কত বছর যাবৎ হোটেল ইন্ডাস্ট্রিতে রয়েছেন?
সৌমেন: ২১ বছর যাবৎ আমি হসপিটালিটি ইন্ডাস্ট্রিতে রয়েছি। দু ‘দশক আগে আমি জামশেদপুরের আর আই এইচ এম থেকে হোটেল ম্যানেজমেন্ট পাশ করি। তারপরে তাজ ব্লু ডায়মন্ড (পুনে), নভোটেল (মুম্বই জুহু বিচ),আম্বিভ্যালি সাহারা লেকসিটি ইত্যাদি বহু হোটেলে চাকরি করেছি।

 

 

এই হোটেলের ইউএসপি কী?
সৌমেন: হোটেলের বাহ্যিক এবং আভ্যন্তরীণ নবরূপে সংস্করণ করা হয়েছে। অন্দরসজ্জায় হেরিটেজ লুকের সঙ্গে ভাইব্রান্ট কালার কম্বিনেশনের রয়েছে অপূর্ব মিশেল। রিসেপশন এরিয়া শতাব্দীপ্রাচীন লেদার সুটকেস ইত্যাদি লাগেজ দিয়ে ডেকর করা, যা পর্যটকেরা স্মৃতির সরণি বেয়ে নস্টালজিক করে তুলতে পারে। চা-বাগানে শ্রমিকেরা যে বেতের টুপি ব্যবহার করেন তা দিয়ে তৈরি করা শ্যানডেলিয়র একনজরে দৃষ্টি আকর্ষণ করে। এছাড়া এখানে জাহাজে ব্যবহৃত শতাব্দী-প্রাচীন সরঞ্জাম আর্ট গ্যালারিতে এমনভাবে সাজানো হয়েছে যাকে আর্কাইভ বলা যেতে পারে।হোটেলে মোট ক’টি ডেক রয়েছে?
সৌমেন: গ্রাউন্ড, ফার্স্ট, সেকেন্ড এবং আপার ডেক নিয়ে মোট ৪ টি ডেক…
গ্রাহকদের পরিষেবার জন্য আর কী সুযোগ সুবিধা রয়েছে?
সৌমেন: এখানে ওয়ার্ল্ড-ক্লাস সুযোগ সুবিধার পাশাপাশি ইন্টারন্যাশনাল ডাইনিংয়ের অভিজ্ঞতাও পর্যটকদের মিলবে। মোট ৫৮ টি লাক্সরিয়াস রুম আছে। এছাড়াও রয়েছে ওপেন এরিয়া সমেত ১৯ টি ব্যাংকোয়েট। যেখানে ১০- ১৫০০ জনের পার্টি, জন্মদিন, বিয়ের অনুষ্ঠান ইত্যাদি আয়োজন করার সুবন্দোবস্ত রয়েছে। এয়ারপোর্ট সার্ভিস মিলবে। এছাড়াও আছে বোট রাইডের ব্যবস্থা।

বোট রাইডিং-এর কী ধরনের ব্যবস্থা আছে?
সৌমেন: হোটেলের দুটো নৌকা আছে। সকাল ৬ টা – বিকেল ৪.১৫ পর্যন্ত সার্ভিস মিলবে। অতিথিদের নৌকা বিহার করাবেন পাজামা-পাঞ্জাবি পরা দুজন মাঝি। দুটো প্যাকেজ রয়েছে, যাকে পিকনিক বাস্কেট বলা হয়। এক্ষেত্রে দেশি এবং বিদেশি দু’রকম খাবারের আইটেম পাবেন। সেইসঙ্গে গঙ্গাবক্ষে নৌকাবিহারকে আরও উপভোগ্য করে তুলতে বিনোদনের জন্য নৌকোর ভেতরে গান শোনারও ব্যবস্থা আছে। স্মরণীয় মুহূর্ত লেন্সবন্দি করতে পোলারয়েড ছবির বন্দোবস্ত রয়েছে।

দেশি ও বিদেশি খাবারের আইটেমের মধ্যে কী কী আছে?
সৌমেন: সম্পূর্ণ ভেজ আইটেম মিলবে। দেশি আইটেমের মধ্যে ভাঁড়ে মশলা চা থেকে শুরু করে প্রজাপতি বিস্কুট, ঝালমুড়ি, পিঁয়াজি ,আলুর চপ, সন্দেশ ইত্যাদি মিলবে। আর বিদেশি আইটেমে রয়েছে চা অথবা কফি, কুকিজ, ভেজিটেবল ক্যানাপিস, নাগা চিলি চিজ টোস্ট, ফ্রুট টার্ট ইত্যাদি।হোটেলে ক’টি রেস্তরাঁ রয়েছে?
সৌমেন: দুটি রেস্তরাঁ কাম বার রয়েছে। আপার ডেকে রয়েছে ‘দ্য ব্রিজ বিস্ট্রো বার’, রুফটপে আছে’ দ্য স্কাই বার’। যেখানে মাল্টিক্যুইজিন মিলবে। যা তিনটি সেগমেন্টে বিভক্ত। নর্থ ইস্ট ফুড, ওল্ড কলকাতা হেরিটেজ ফুড, শেফস কমফোর্ট মর্ডান ডিশ।এছাড়াও মকটেল, ককটেল, অ্যালকোহল, বেভারেজ আছে। ‘ রুম সার্ভিস বাই পোলো ফ্লোটেল’ নামে একটা সেগমেন্ট রয়েছে। সেখান থেকে হোম ডেলিভারি করা হয়। ‘প্রিমিক্স’ বেভারেজ বিক্রি হয়। এটি বহিরাগত মানুষেরাও এখান থেকে এসে কিনতে পারেন।

 

নতুন কোনও সার্ভিস চালু করার পরিকল্পনা আছে কি?
সৌমেন: অবশ্যই। কলকাতা ওয়াকের মতো আমাদের হোটেল খুব শিগগির কলকাতা ট্যুর চালু করবে। যেখানে ফুড সমেত প্যাকেজ রয়েছে। পর্যটকদের কলকাতার ঐতিহ্যপূর্ণ দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখানো হবে।এই কোভিড সময়ে আপনারা কী ধরনের হোম ডেলিভারি সার্ভিস চালু করেছেন?
সৌমেন: হ্যাঁ, কোভিডের কথা মাথায় রেখে বেশ কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যেরকম অর্ডার আসবে সেইমতো হালকা তেল-মশলাযুক্ত খাবার আমরা তৈরি করছি। যাতে সময়মতো সেই খাবার বাড়ি পৌঁছে দেওয়া যায় সে জন্য বেশকিছু ম্যানপাওয়ারও রিক্রুট করেছি আমরা।বাড়ির খাবারের পাশাপাশি অল্পসংখ্যক লোক নিয়ে কোনও অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রেও হোম ডেলিভারি সার্ভিস করছি। শুধু তাই নয়, চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনে আমাদের শেফও উপস্থিত থাকবেন। এছাড়াও ইমিউনিটি ড্রিংকস এবং কী ধরনের খাবার খেলে রোগী কীভাবে দ্রুত সুস্থ হবেন তাও আমরা ফ্রিতে ফোন মারফত উপদেশ দিচ্ছি। যোগাযোগ করতে হবে ৮৬৯৭৯৭১৬৭৬ এই নম্বরে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.