শনিবার, ফেব্রুয়ারি ১৬

বিহারে গণধর্ষিতা তরুণী, দেখতে বাধ্য করা হল বাবাকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো  : গত মঙ্গলবার গভীর রাতে বিহারের কিষানগঞ্জ জেলার কোডওয়াধি গ্রামের একটি কুঁড়েঘরের দরজায় ধাক্কা দেয় স্থানীয় কয়েকজন। তারা বলছিল, জলতেষ্টা পেয়েছে, জল খেতে দাও। দরজা একটুখানি ফাঁক করতেই হুড়মুড়িয়ে ঘরে ঢোকে ছ’জন। বাড়ির বাসিন্দা এক ১৯ বছরের তরুণীকে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যায় এক নির্জন জায়গায়। তার বাবাকেও টানতে টানতে নিয়ে যায়।

এরপর ছ’জন মিলে তরুণীকে ধর্ষণ করে। তার বাবা যাতে মেয়ের ইজ্জতহানি দেখতে পায়, সেজন্য তাকে সামনেই গাছে বেঁধে রাখা হয়েছিল। দুষ্কৃতীরা ধর্ষিতা ও তার বাবাকে শাসিয়ে যায়, পুলিশকে জানালে ফল খারাপ হবে।

কিন্তু মেয়েটি সাহস করে পুলিশে অভিযোগ জানায়। কিষাণগঞ্জের পুলিশ সুপার কুমার আশিস জানিয়েছেন, একটি মামলা করা হয়েছে। এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি। অভিযুক্তরা পলাতক। তিনি নিজে তদন্তের অগ্রগতির ওপরে লক্ষ করছেন। কোনও গ্রাম্য বিবাদের জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে কিনা, খোঁজ নিচ্ছে পুলিশ।

গত কয়েক দশক ধরেই বিহারে ‘জঙ্গল রাজ’-এর কথা শোনা যায়। আগে আরজেডি নেতা লালুপ্রসাদ যাদব যখন মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, বিহার সম্পর্কে এই কথাটি বার বার শোনা যেত। তখন বিহারের অর্থনৈতিক উন্নয়নের হার ছিল অন্যান্য রাজ্যের চেয়ে অনেক কম। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির গুরুতর অবনতি হয়েছিল। অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, অস্ত্রের ব্যবসা ও অন্যান্য অপরাধ ঘটত নিয়মিত। অনেক ধনী ব্যক্তি প্রাইভেট আর্মি বানিয়ে ফেলেছিল।

লালুর বিরুদ্ধে জঙ্গল রাজের অভিযোগ তুলেই ক্ষমতায় আসেন নীতীশ কুমার। একসময় তিনি ছিলেন এনডিএ-র শরিক। পরে লালুর সঙ্গে জোট বাঁধেন। ফের সেই জোট ছেড়ে যোগ দেন এনডিএ-তে। গতবছর বিহারে অনাথ আশ্রমে কেলেংকারির কথা জানাজানি হতে ফের জঙ্গল রাজের কথা শোনা যায়। এবার লালুর দলের নেতারাই অভিযোগ করতে থাকেন, বিহারে জঙ্গল রাজ চলছে।

রাজ্যে সাম্প্রতিক কয়েকটি খুনজখমের ঘটনায় অস্বস্তিতে পড়েছেন নীতীশও। গত মে মাসেই নীতীশ কুমার বলেছিলেন, কিছুদিন আগে বিহারে যা ঘটেছে তাতে গভীর দুঃখ পেয়েছি। আমরা অপরাধীদের বিচার করবই। তার আগে সিওয়ানে প্রকাশ্যে এক সাংবাদিককে গুলি করে মারা হয়। গয়ায় বেপরোয়া গাড়ি চালানোর শিকার হন এক তরুণ। ওই দু’টি ঘটনার প্রেক্ষিতেই নীতীশ দুঃখপ্রকাশ করেন।

এরপরে কিষাণগঞ্জের ঘটনায় বিরোধীরা যে নতুন করে রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে সরব হবেন তাতে সন্দেহ নেই পর্যবেক্ষকদের।

Shares

Comments are closed.