নিজের কৃতিত্ব নিতেই ব্যস্ত, ছড়িয়েছে কোভিড সংক্রমণ, মোদী সরকারকে নিশানা অমর্ত্যর

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনাভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যেই দেশে থার্ড ওয়েভের হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। গত কয়েকদিনে সামান্য কমলেও চলতি দফায় দৈনিক সংক্রমণ ৪ লাখের বেশি ছিল, রোজ ৪৫০০ এর ওপর লোক মরছিল। যদিও সরকার, প্রশাসনের তরফে সংক্রমণ ও মৃত্যুসংখ্যা কমিয়ে দেখানো হচ্ছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে কয়েকটি মহল। আগে থেকেই যুদ্ধ জয়ের ঘোষণার  মানসিকতার ফলেই বর্তমান সঙ্কট তৈরি হয়েছে বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের একাংশের। এই প্রেক্ষাপটেই কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকারের সমালোচনা করে অমর্ত্য সেন বললেন, ওষুধ উত্পাদন শিল্প শক্তিশালী হওয়ায়, রোগ প্রতিরোধী শক্তি বা ইমিউনিটি বেশি থাকায় ভারত অতিমারী মোকাবিলায় সুবিধাজনক, ভাল জায়গায় ছিল।  কিন্তু সরকারের মধ্যেই বিভ্রান্তি থাকায় সঙ্কট মোকাবিলায় দুর্বল প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে, ভারত নিজের শক্তি কাজে লাগাতে পারেনি। দোলাচলে থাকা ভারত সরকার কোভিড ১৯ এর বিস্তার নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা গ্রহণের বদলে নিজের কাজের কৃতিত্ব নিতেই বেশি মনোযোগী ছিল, যা থেকে স্কিজোফ্রেনিয়া তৈরি হয়, ব্যাপক সমস্যা মাথাচাড়া দেয়।

নোবেলজয়ী হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি, দর্শনের প্রফেসর  এক আলোচনাচক্রে ১৭৬৯ সালে আধুনিক অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথের লেখা উদ্ধৃত করেন। স্মিথ বলেছিলেন, কেউ ভাল কাজ করলে তার কৃতিত্ব পায়। একজন কতটা ভাল করছে, কখনও কখনও তার ইঙ্গিত মেলে  কৃতিত্ব থেকে।  কিন্তু যে ভাল কাজে কৃতিত্ব আসে, সেটা  না করে কৃতিত্ব নিতে চাওয়াটা  বৌদ্ধিক ছেলেমানুষিকে তুলে ধরে যা এড়ানো উচিত। ভারত সেটাই করার চেষ্টা করেছিল। সরকার দুনিয়াব্যাপী কৃতিত্ব নিতে ফলাও করে বলতে থাকে, ভারত গোটা বিশ্বকে বাঁচাবে। আবার একই সময়ে সমস্যা বাড়তে দেওয়া হয় যাতে দেশজুড়ে ভারতবাসীর জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে।

ভারত এমনিতেই সামাজিক বৈষম্য, শ্লথ গতিতে উন্নয়ন, রেকর্ড বেকারিতে ব্যতিব্যস্ত, যা অতিমারী কালে চরম আকার নিয়েছে, বলেন তিনি। এও বলেন, অর্থনীতি ও সামাজিক ঐক্যের ব্যর্থতার জন্য অতিমারীর আক্রমণ রুখতেও ব্যর্থ হয়েছে দেশ। সীমিত শিক্ষার ফলে আগেভাগে লক্ষণ বোঝা ও ট্রিটমেন্টের প্রটোকল নির্ধারণে সমস্যা হয়েছে বলেও অভিমত জানান তিনি। পাশাপাশি  স্বাস্থ্য পরিষেবা ও শিক্ষায় বড় কাঠামোগত  বদলের কথা বলেন তিনি, সাধারণ আর্থিক, সামাজিক নীতিতেও বড়সড় পরিবর্তনের প্রস্তাব দেন।

 

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More