অ্যালার্জি বাড়ছে রাতে? এই নিয়মগুলো মানলে ঘুম আসবে সহজেই

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ঘুমের সমস্য়া এখন ঘরে ঘরে। রাতে সময় মতো শুলেও ঘুম আসতে চায় না কিছুতেই। এপাশ ওপাশ করেই অর্ধেক রাত কেটে যায়। এই যে ঘুম আসছি আসছি করেও আসে না, তার অনেক কারণ। ডাক্তাররা বলেন ঘুম না আসাটাই একটা রোগ। শরীরেরও তো একটা ঘড়ি আছে। সেও কাঁটায় কাঁটায় চলতে চায়। খিদে পাওয়ার যেমন সময় আছে, ঘুমেরও তেমনি সময় আছে। আর ক্লান্ত শরীরেও যদি ঘুম না আসে তার মানেই গণ্ডগোল বেঁধেছে ধরে নিতে হবে। ডাক্তাররা বলেন অনিদ্রা বা ইনসমনিয়া। তাছাড়া অ্যালার্জির সমস্যাও ভোগায় অনেককে। নিয়মিত অ্যান্টি অ্যালার্জির ওষুধ খেয়ে ঘুমোতে যান অনেকে। মনে করেন, অ্যান্টি অ্যালার্জির ওষুধ বা অ্যান্টিহিস্টামিন জাতীয় কড়া ওষুধ ততটা ক্ষতিকর নয়। বিশেষজ্ঞরা বলেন, ওষুধ নয়, নিয়ম মানলে ওষুধ ছাড়াই নিশ্ছদ্র ঘুম আসা সম্ভব।

8 Tips for Nighttime Allergy Relief | Sleep Centers of Middle Tennessee

অ্যালার্জি দূর করার মোক্ষম কিছু টোটকা–

শোওয়ার বিছানা পরিপাটি রাখুন। অনেক সময় দেখা যায় অপরিচ্ছন্ন বিছানা  চাদরে ঘুমোতে গিয়ে অ্যালার্জি ধরে যায় অনেকের। শোওয়ার পরেই হাঁচি, নাক বন্ধ, অস্বস্তি শুরু হয়। তাই বিছানা সবচেয়ে আগে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা উচিত।

বেডরুমে কার্পেট থাকলে তা নিয়মিত পরিষ্কার রাখার ব্যবস্থা করুন। কার্পেট থেকেও অ্যালার্জি হয় অনেকের।

পোষ্যের লোম থেকেও অ্যালার্জি হতে পারে। সেক্ষেত্রে বিছানায় পোষ্যদের না শোওয়ানোই ভাল।

সিলিং ফ্যান পরিষ্কার না রাখলে সেখানে জমা ধুলো থেকেও অ্য়ালার্জি হতে পারে। সেদিকেও নজর রাখতে হবে।

Allergies at Night: Why Do I Sneeze More at Bedtime?

অতিরিক্ত ঠান্ডায় অ্যালার্জি হয় অনেকের। সেক্ষেত্রে ঘরের আর্দ্রতা একটা নির্দিষ্ট মাত্রায় রাখতে হবে।

ঘরের বাতাস বিশুদ্ধ রাখার জন্য এয়ার পিউরিফায়ার ব্যবহার করা যেতে পারে।

ঘুমোবার আগে মোবাইল দেখা মানেই ঘুমের বারোটা বেজে যাওয়া। মোবাইল, ট্যাবলেট বেশিক্ষণ ব্যবহার করলেই শরীরে মেলাটোনিন ক্ষরণ প্রায় ২২ শতাংশ কমে যায়। মেলাটোনিন উৎপাদন কমে যাওয়া মানেই শরীরের স্বাভাবিক ক্রিয়াগুলো ব্যাহত হওয়া। দেখা গেছে, ঘুমোবার সময় যারা মোবাইল করে তাদের অনিদ্রা রোগের ঝুঁকি বেশি। মোবাইল থেকে বেরনো রশ্মিতে মস্তিষ্কের স্নায়ু সজাগ হয়ে যায়। ফলে সহজে ঘুম আসতে চায় না।

বিশেষজ্ঞদের মতে, অ্যালার্জির সমস্যা না থাকলে অ্যান্টি অ্যালার্জি ওষুধ বা অ্যান্টিহিস্টামিন খাওয়ার অভ্যাস বিপদ ডেকে আনতে পারে। অ্যান্টিহিস্টামিনের বেশ কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে যা অত্যন্ত ক্ষতিকর। কোষ্ঠকাঠিন্য, হৃদস্পন্দনের গতি বেড়ে যাওয়া, গলা-মুখ শুকিয়ে যাওয়া, মুত্রত্যাগের সমস্যা এমনকি রক্তচাপ অস্বাভাবিক হারে কমে যেতে পারে।

ঘুমের আগে সেরে ফেলুন গরম জলে হাল্কা স্নান। সুগন্ধ ঘুম আনে। তাই ঘুমের আগে ঘরে স্প্রে করুন ‘স্লিপ স্প্রে’। নানা ফুলের গন্ধ মেলানো এমন স্প্রে যে কোনও অনলাইন শপ বা নামী দোকানে সহজেই পাবেন।

ঘাড়ে, কাঁধে আরাম দেবে এমন বালিশ বাছুন, তাতে ঘুম আসবে তাড়াতাড়ি। বালিশে কার্পাস তুলো হলে ভাল হয়। একান্তই না পারলে ফোমের ভাল বালিশ বানান। তবে স্পঞ্জের বালিশ ব্যবহার না করাই ভাল।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.