কুম্ভ মেলার আগেই উত্তরাখণ্ডে ছড়িয়ে ছিল অতি ছোঁয়াচে করোনার ডবল স্ট্রেন!

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনার বেলাগাম সংক্রমণে করুণ পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েছে গোটা দেশ। সেলিব্রেটি, নেতা-মন্ত্রী, বা আমজনতা, প্রতিদিন কেউ না কেউ আক্রান্ত হচ্ছেন করোনায়। আর এই পরিস্থিতিতেই চলছে কুম্ভের পূর্ণ স্নান। সম্প্রতি একটি চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট সামনে এসছে কুম্ভ মেলাকে ঘিরে। ন্যাশনাল সেন্টার ফর ডিজিস কান্ট্রোল (এনসিডিসি)র রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনা দ্বিতীয় ঢেউ কুম্ভ মেলার আগেই উত্তরাখণ্ডে ঢুকে পড়েছিল।

দেরাদুনের ভাইরাল রিসার্চ এণ্ড ডায়াগনোস্টিক ল্যাবরেটারির চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, উত্তরাখণ্ডের ছয়টি করোনা কেসের নমুনা রিপোর্ট এনসিডিসি পর্যবেক্ষণ করার পর এই সিদ্ধান্তে পৌঁছয়। গবেষকরা সোমবারই এই রিপোর্ট দেয় যে ওই ছয়টি কেসের মধ্যে তিনটি ক্ষেত্রে করোনার ডাবল মিউট্যান্ট স্ট্রেনের হদিশ মিলেছে। বাকি দুটির ক্ষেত্রে ব্রিটেন থেকে আসা স্ট্রেন মিলেছে। একটির বিষয়ে এখনও অজানা। সেটা কোন ধরণের করোনা স্ট্রেন, তা জানার চেষ্টা চলছে।

কুম্ভ মেলা শুরু হয়েছে গত ১ তারিখ থেকে। তার আগেই মার্চের শেষের দিকে এসিডিসিতে এই ছয়টি কেসের নমুনা পাঠানো হয়েছিল এনসিডিসিতে। বিষয়টি নিয়ে আরও একবার চাপের মুখে পড়ল কেন্দ্র ও উত্তরাখণ্ড সরকার।

কোভিড পরিস্থিতিতে কুম্ভ মেলার আয়োজন নিয়ে নানামহল থেকে আপত্তি উঠেছিল। অনেকে প্রতীকী স্নানে সমর্থন জানিয়ে ছিলেন। কিন্তু সমস্ত কিছু হাতের মধ্যেই আছে ভেবে, ঘটা করে কুম্ভ মেলার শাহী স্নানের আয়োজন করা হয়েছে। লক্ষ লক্ষ পুণ্যার্থী সেখানে সম্মেলিত হয়েছেন। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য দফতর থেকে আগেই জানিয়ে ছিল যে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আগের চেয়ে অনেক বেশি ছোঁয়াচে। এই ডাবল মিউট্যান্ট স্ট্রেনের স্পাইক E484Q এবং L452R নামে পরিচিত।

দেরাদুনের দুন মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের অধ্যাপক দীপাল জুয়াল বলেছেন, ” এতে পরে বেশ প্রভাব পড়বে, যেহেতু কুম্ভ মেলা শুরু হওয়ার আগে থেকেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছিল। এটি কেবলমাত্র অত্যন্ত সংক্রামকই নয়, এটি স্বাভাবিক প্রতিরোধ ক্ষমতাকেও হারিয়ে দিতে সক্ষম।” কুম্ভ মেলা শুরুর পর থেকে উত্তরাখণ্ডের ক্ষেত্রে সাতগুণ বেড়েছে করোনা সংক্রমণ।

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More