নবান্নের আপত্তি নাকচ, তিন আইপিএস অফিসারকে কেন্দ্রীয় ডেপুটেশনের পোস্টিং দিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নবান্নের আপত্তি শুনল না কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদী সরকার। তিন আইপিএস কর্তাকে কেন্দ্রীয় ডেপুটেশনে পাঠানোর নির্দেশ দিল দিল্লি।

এঁদের মধ্যে প্রেসিডেন্সি রেঞ্জের ডিআইজি প্রবীণ ত্রিপাঠি সশস্ত্র সীমা বল তথা এসএসবি-তে ৫ বছরের জন্য ডেপুটেশনে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাঁকে এসএসবির ডিআইজি পদে বদলি করা হচ্ছে। এডিজি (দক্ষিণবঙ্গ) রাজীব মিশ্রকে পাঠানো হচ্ছে ইন্দো টিবেট বর্ডার পুলিশের আইজি পদে। তাঁকেও ৫ বছরের জন্য ডেপুটেশনে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ডায়মন্ডহারবারের পুলিশ সুপার ভোলানাথ পান্ডেকে যেতে বলা হয়েছে ব্যুরো অব পুলিশ রিসার্চ বিপিআরডি-তে। তাঁর ডেপুটেশনের মেয়াদ হবে ৩ বছর।

বিজেপি সভাপতি জগৎপ্রকাশ নাড্ডা গত বৃহস্পতিবার ডায়মন্ডহারবারে রাজনৈতিক কর্মসূচি নিয়ে গিয়েছিলেন। নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার ব্যাপারে এই তিন উচ্চপদস্থ আইপিএস কর্তার উপর সরাসরি দায়িত্ব ছিল। কিন্তু নাড্ডার কনভয়ের উপর বেনজির হামলা হয়। তার পরপরই এই তিন আইপিএস অফিসারকে কেন্দ্রীয় ডেপুটেশনের নির্দেশ দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

কেন্দ্রের ওই নির্দেশ পেয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়েছিল নবান্ন। চার দিন আগে নবান্নের তরফে চিঠি দিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রককে বলা হয়, ওঁদের ছাড়া যাবে না। কিন্তু সেই আপত্তির কথা শুনল না কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। নর্থ ব্লক সূত্রে বলা হচ্ছে, সেন্ট্রাল সার্ভিসেস রুল ৬(১) মোতাবেক কেন্দ্রের অধিকার রয়েছে, কেন্দ্রীয় ক্যাডারের অফিসারদের বদলি করার। সেই নিয়ম অনুযায়ী তাঁদের বদলি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: গর্জে উঠলেন মমতা, আইপিএস-দের বদলি অগণতান্ত্রিক, রাজ্য এক্তিয়ারে নাক গলিয়ে অফিসারদের ভয় দেখাচ্ছে

কোনও সংশয় নেই, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের এই কড়া অবস্থানের পর কেন্দ্র-রাজ্য তীব্র সংঘাতের পরিস্থিতি তৈরি হল।

দিল্লির পদক্ষেপ নিয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়ে, আগেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব অজয় ভাল্লাকে চিঠি লিখেছিলেন তৃণমূলের সাংসদ তথা আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর বক্তব্য, “পরোক্ষে বাংলায় জরুরি অবস্থা জারি করার চেষ্টা চলছে। আইএএস-আইপিএস অফিসারদের ভয় দেখানোর চেষ্টা হচ্ছে। এর উদ্দেশ্য অসৎ। আপনি বা অমিত শাহ কেউই আইনের উর্ধ্বে নন।”

নর্থব্লকের একটি সূত্রের মতে, এর পরে ওই তিন অফিসারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশ নিয়ে মামলা করার অধিকার অবশ্যই রয়েছে। যদি তাই হয়, সে ক্ষেত্রে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক নিশ্চয় আইনি পথেই ব্যবস্থা নেবে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More