রাজ্যে কয়লার কারবারির অফিসে আয়কর হানা, মিলল বিপুল অঙ্কের টাকা, বেআইনি ব্যবসার কাগজপত্র

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কয়লা, বালি খাদান ও স্পঞ্জ আয়রনের ব্যবসায় বেআইনি কার্যকলাপ ঠেকাতে তৎপর হল আয়কর দফতর। গত বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গের এক কয়লা ব্যবসায়ীর কয়েকটি অফিসে হানা দিয়ে ইনকাম ট্যাক্সের অফিসাররা বিপুল অঙ্কের হিসাব বহির্ভূত টাকা উদ্ধার করেন। সেই সঙ্গে পাওয়া যায় আপত্তিকর নথিপত্র। আয়কর দফতরের কমিশনার সুরভি অহলুওয়ালিয়ার নামে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গত ৫ নভেম্বর আয়কর দফতর পশ্চিমবঙ্গের এক নামী কয়লা ব্যবসায়ীর অফিসে তল্লাশি করে। গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে ওই তল্লাশি চালানো হয়। তাতে বোঝা গিয়েছে, কয়লা ব্যবসায় বিপুল অঙ্কের হিসাব বহির্ভূত অর্থ জমা হচ্ছে। সেই অর্থ নানা কাজে লাগানো হয়েছে।

অভিযুক্ত কয়লা ব্যবসায়ীর নাম আয়কর দফতর জানায়নি। কিন্তু বলা হয়েছে, তাঁর রানিগঞ্জ, আসানসোল, পুরুলিয়া ও কলকাতার অফিসে তল্লাশি চালানো হয়েছিল। তল্লাশিতে যে কাগজপত্র পাওয়া গিয়েছে, তাতে বোঝা যায়, কয়লা ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন কোম্পানি ভুয়ো বিনিয়োগ করেছে। ওই সংস্থাগুলির ১৫০ কোটি টাকা মূল্যের আনকোটেড শেয়ারের কাগজ ছিল। তার মধ্যে ১৪৫ কোটি টাকা মূল্যের শেয়ার বিক্রি করা হয়েছে। যদিও এই বেচাকেনার যে নথি পাওয়া গিয়েছে, তা জাল। অভিযুক্ত ব্যবসায়ী সেকথা স্বীকার করেছেন।

তল্লাশির ফলে এমন কিছু নথিপত্র উদ্ধার হয়েছে, যাতে বোঝা যায়, কয়লা, বালি খাদান এবং স্পঞ্জ আয়রনের ব্যবসায় বেআইনিভাবে টাকা তোলা হচ্ছে। আরও যে সব নথিপত্র পাওয়া গিয়েছে, তাতে বোঝা যায়, কয়লা পরিবহণে ও অন্যান্য ব্যবসায় বিপুল পরিমাণে হিসাব বহির্ভূত অর্থ বিনিয়োগ করা হয়েছে।

বিবৃতির শেষে আয়কর দফতর জানিয়েছে, তল্লাশিতে নগদ অর্থ ও সোনারুপো মিলিয়ে মোট ৭ কোটি ৩০ লক্ষ টাকা উদ্ধার হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে এখনও তদন্ত চলছে।

বেশ কিছুদিন ধরেই পশ্চিমবঙ্গে অবৈধ বালি খাদান, কয়লা খনি ও স্পঞ্জ আয়রনের কারখানার কথা শোনা যায়। বিভিন্ন মাফিয়া চক্র ওই বেআইনি কারবারগুলি চালায়। পর্যবেক্ষকদের মতে, আয়কর দফতরের তল্লাশিতে তেমনই এক চক্রের হিসাব বহির্ভূত অর্থ ও সম্পদের হদিশ পাওয়া গিয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More