সাইকেল চড়ে বাংলা থেকে মিজোরাম, সীমান্তে অপরাধ রুখতে অভিনব অভিযান বিএসএফ-বিজিবির

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বাংলার সীমান্ত নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই দুই দেশের। পাচার, অনুপ্রবেশ নিয়ে একবারে ল্যাজে গোবরে হয়ে যাচ্ছে বিএসএফ-বিসিজির জওয়ানরা। ঠেকাতে চাইলেও বন্ধ হচ্ছে কই। এছাড়া সীমান্তে একাধিক খুন নিয়েও দুই দেশের বন্ধুত্বে আঁচড় লাগছে। বৈঠকে দুই দেশ মুখোমুখি হতেই পাচার, অনুপ্রবেশ ও সীমান্তে খুন নিয়ে অভিযোগ ও আশ্বাস ছাড়া আর কিছুই থাকছে না। তাই এবার সমস্যা মেটাতে বঙ্গবন্ধুকেই ‘শ্রীখণ্ডি’ করতে হচ্ছে।

এবার একশো বছর পূর্তি হয়েছে শেখ মুজিবরের জন্মের। তাই ইন্দিরা-মুজিবের এক সঙ্গে পথ চলার প্রতিশ্রুতিকে রক্ষার দায়িত্ব নিলেন সীমান্তরক্ষীরাই। পাচার, খুন, অনুপ্রবেশ রুখতে সাইকেল ব়্যালি করে জনে জনে প্রচার চালাচ্ছে বিএসএফ-বিজিবি। দুই দেশের বন্ধুত্বের কথাও মনে করা হচ্ছে। গত ১০ তারিখ থেকে শুরু হয়েছে এই ব়্যালি। ৪০৯৭ কিলোমিটার রাস্তা সাইকেলেই পেরোবে ১৭ বিএসএফ জওয়ান।

ভারত-বাংলাদেশ উভয় সীমান্তে উৎপাত রয়েছে চোরা-কারবারীদের। অপরাধ কমাতে বহু ব্যবস্থা নিলেও লাভ হয়নি। এবার ৬৬ দিন ধরে চলবে এমন অভিনব প্রচার। উত্তর ২৪ পরগনার বিপিও পানিতর থেকে শুরু হয় এই ব়্যালি। শেষ হবে আগামী ১৭ মার্চ, মিজোরামের সিলকোর ক্যাম্পে।

বিএসএফ সূত্রের খবর, বিএসএফ-এর ইস্টার্ন কমান্ডের অধীন ৪০৯৭ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকায় থাকা বিভিন্ন বিএসএফ ক্যাম্পগুলিতে অনুষ্ঠান হবে। ইতিমধ্য়েই জলপাইগুড়ি জেলার বিভিন্ন ক্যাম্প ঘুরেছে এই সাইকেল ব়্যালি। ব়্যালি দেখতে বিএসএফ-এর ২১ নম্বর ব্যাটালিয়ন মধ্যে থাকা বেরুবাড়ির সীপাইপাড়া সীমান্তে হাজির হয়েছিলেন স্থানীয়রা।

সাইকেল ব়্যালির  টিম লিডার জিতেন্দ্র সিং বলেন, দুই দেশের মানুষের মধ্যে বন্ধুত্ব আরও মজবুত করতে এই সাইকেল ব়্যালি। স্থানীয় বাসিন্দা মকসেদুল হক বলেন, “আমরা সীমান্তের বাসিন্দা। সীমান্তরক্ষীরা আমাদের প্রচুর সাহায্য করে। ব়্যালির  জন্য দুই দেশের বন্ধুত্ব আরও ভালো হবে। ফলে সীমান্তের অপরাধ অনেক কমবে।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More