নেহেরু-গান্ধী পরিবারই দেশকে বাঁচিয়ে রেখেছে, দাবি শিবসেনার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা বিধ্বস্ত ভারতের অবস্থা দিন দিন যেন আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। অক্সিজেন, চিকিৎসা সামগ্রী পাঠিয়ে ইতিমধ্যে ভারতের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে একাধিক রাষ্ট্র। কোভিডের এই বেসামাল পরিস্থিতিতে অযোগ্যতার দায় মোদী সরকারের উপর চাপাল শিবসেনা।

মহারাষ্ট্রে ক্ষমতাসীন শিবসেনা এদিন দাবি করেছে এই কঠিন সময়ে ভারত যে এখনও লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে, এখনও হার মানেনি তার সমস্ত অবদান কংগ্রেস শাসনের। অতীতে ৭০ বছর ধরে যে শাসনব্যবস্থার শক্ত ভিত গড়ে তুলেছিলেন নেহেরু গান্ধী পরিবার, সেই ভিতকেই আরও দৃঢ় করেছেন মনমোহন সিং। আর তার জেরেই ভারত এই বিশ্বব্যাপী মহামারীর সঙ্গেও প্রাণপণ লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে।

শুধু তাই নয়, করোনা আবহে মোদী সরকারের সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রজেক্টের কাজ যে রমরমিয়ে চলছে এদিন তা নিয়েও কটাক্ষ করেছে উদ্ধব ঠাকরের দল। তারা বলেছে, ভারতের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রতিবেশী ছোটো ছোটো দেশগুলিও সাহায্য পাঠাচ্ছে, কিন্তু মোদী সরকার এখনও তাদের সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রজেক্টের কাজ বন্ধ করতে রাজি নয়।

মুখপত্র সামনায় শিবসেনা লিখেছে, “ভারতে যে হারে রোজ করোনা ছড়াচ্ছে তাতে ইউনিসেফ পর্যন্ত আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ ১০ হাজার রেমডিসিভির ওষুধ ভারতে পাঠিয়েছে। ভূটান পাঠিয়েছে মেডিকেল অক্সিজেন। ‘আত্মনির্ভর’ ভারতকে সাহায্য করার কথা বলেছে শ্রীলঙ্কা নেপাল মায়ানমারও। এই পরিস্থিতিতে ভারত যে এখনও টিকে আছে তা একমাত্র নেহেরু গান্ধী পরিবারের কারণেই।”

গরীব দেশগুলো যখন ভারতকে সাহায্য করতে চাইছে তখন ভারত সরকার ২০ হাজার কোটি টাকার সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রজেক্ট বন্ধ করতে প্রস্তুত নয়, এমনটাই মন্তব্য করা হয়েছে শিবসেনার মুখপত্রে। এই প্রজেক্টের মাধ্যমেই তৈরি হচ্ছে ভারতের নতুন সংসদ ভবন।

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথাও তুলে এনেছে শিবসেনা। তারা বলেছে, “বিশেষজ্ঞরা ভারতে করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে সতর্ক করেছেন। আর মোদী সরকার কীভাবে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে কোণঠাসা করা যায় তা নিয়ে ব্যস্ত।”

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More