উপনির্বাচন ৪ লোকসভা ও ১০ বিধানসভা কেন্দ্রে, সবার নজর কাইরানায়  

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিজেপি কি পারবে কাইরানার আসন ধরে রাখতে? নাকি জিতবে বুয়া-বাবুয়ার বিরোধী জোটই?

উপনির্বাচন উত্তরপ্রদেশের কাইরানা লোকসভা আসনে। আর সেদিকে তাকিয়ে জাতীয় রাজনীতির কুশীলবরা। এ যেন আগামী লোকসভা ভোটেরই ছোট্ট এক মহড়া।

বিরোধীদের জোট কি পারবে উত্তরপ্রদেশে বিজেপির জয়রথ আটকাতে?

কাইরানায় এর আগেই জিতেছিলেন বিজেপির হুকুম সিং। প্রায় পঞ্চাশ শতাংশের বেশি ভোট পেয়েছিলেন তিনি। তাঁর মৃত্যুর পরে তাঁরই মেয়ে মৃগাঙ্কা সিং-কে দাঁড় করিয়েছে বিজেপি।

কাইরানায় বিরোধীদের প্রার্থী তাবাস্‌সুম হাসান। হুকুম সিং-এর আগে এই কেন্দ্রের সাংসদ ছিলেন তিনিই। তখন অবশ্য ছিলেন মায়াবতীর বহুজন সমাজবাদী দলে। মাঝে কিছুদিন সমাজবাদী দল ঘুরে এখন তিনি অজিত সিং-এর রাষ্ট্রীয় লোক দলে।

১৬ লক্ষ ভোটারের এই নির্বাচন কেন্দ্রে ৫ লক্ষ মুসলিম ভোটার। তার ওপর এই কেন্দ্রে ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে বিজেপিকে ভোট দেওয়া জাঠদের একাংশ এর আগে রাষ্ট্রীয় লোক দলেকেই ভোট দিত। এবারও যে তারা আবার রাষ্ট্রীয় লোক দলকে ভোট দেবে না এমন কোনও নিশ্চয়তা নেই। ফলে চাপে বিজেপি।

এর আগে খোদ যোগী আদিত্যনাথের গোরক্ষপুর এবং ফুলপুরে বিরোধীদের জোট পর্যুদস্ত করেছে বিজেপি। তার ওপর এবার কদিন আগেই বিরোধীদের ঐক্যের কারণে হাতছাড়া হয়েছে কর্নাটক। কাইরানায় হারলে, বিরোধীদের এককাট্টা হওয়ার কারণ যে আরও মজুবত হবে সে কথা মোক্ষম জানে অমিত শাহের দল। প্রশ্ন উঠে যাবে খোদ প্রধানমন্ত্রী মোদীর ভবিষ্যত নিয়েও।

তাই কাইরানা জিততে কোনও কসুর ছাড়ছে না তারা। মুখ্যমন্ত্রী যোগী ও উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্য্য বারবার প্রচার করেছেন এই কেন্দ্রে। এমনকি খোদ নরেন্দ্র মোদীও কদিন আগেই ঘুরে গিয়েছেন এই নির্বাচন কেন্দ্রের কাছ থেকে। তিনি অবশ্য এসেছিলেন একটা এক্সপ্রেস ওয়ের উদ্বোধন করতে। কিন্তু সেইখানে এসে তিনি বেশি করে বলেছিলেন আখচাষীদের দুরবস্থা আর আইনশৃঙ্খলা নিয়ে। বিরোধীরা তখন অভিযোগ তুলেছিল, এসব বলে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

মহারাষ্ট্রেও চাপে বিজেপি। এইখানে তাদের বিরুদ্ধে রোজই তোপ দাগছে একসময়ের জোট সঙ্গী শিবসেনা। পালঘরে  আগে সাংসদ ছিলেন বিজেপির চিন্তামন বনাগা। কিন্তু তাঁর মৃত্যুর পর এই আসনে তাঁর ছেলে শ্রীনিবিবাসকে দাঁড় করিয়েছে  শিবসেনা। তাঁর বিরুদ্ধে বিজেপির প্রার্থী কংগ্রেস ছেড়ে আসা রাজেন্দ্র গাবিট। অন্যদিকে ভাণ্ডারা-গোণ্ডিয়া আসনে ভোট বিজেপির নানা পাটোলের ইস্তফার জন্য। তিনি কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। এই সিটে লড়াই বিজেপি হেমন্ত পাটলের বিরুদ্ধে এনসিপির মধুকর কুকড়ের।

পশ্চিমবঙ্গে অবশ্য আগ্রহের কেন্দ্রে মহেশতলার বিধানসভা উপনির্বাচন। আগের বিধায়ক কস্তুরী দাসের মৃত্যুর পর এই কেন্দ্রে দাঁড়িয়েছেন তাঁর স্বামী দুলাল দাস। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ তাঁকে চেনে কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের শ্বশুর হিসাবে। আর স্ত্রী রত্নার সঙ্গে শোভনের এখনকার সম্পর্কও সর্বজনবিদিত। কদিন আগেই শোভনের ফ্ল্যাটের সামনে গভীর রাতে ধর্ণায় বসেছিলেন রত্না। আর মেয়র পাল্টা পুলিশে এফ আই আর করেছিলেন স্ত্রীর বিরুদ্ধে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More