কোভিড পজিটিভ মাত্র ১০২ জন, হার ১.৫ শতাংশ, কুম্ভমেলা সুপারস্প্রেডার নয়! দাবি পুলিশকর্তার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দেশজুড়ে গত কিছুদিন ধরে যেভাবে কোভিড-১৯ সংক্রমণ বেলাগাম বাড়ছে, তার মধ্যেই সাড়ম্বরে কুম্ভমেলার আয়োজন নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। হরিদ্বারে মেলা উপলক্ষ্যে দৈনিক লাখ লাখ লোকের ভিড় হচ্ছে। সেখানে মাস্ক পরা, থার্মাল স্ক্রিনিং ও করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট চেক করার মতো মৌলিক কোভিড-১৯ সংক্রান্ত প্রটোকল মানার বালাই নেই। ফলে কুম্ভমেলা থেকে মারাত্মক হারে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা  করছে নানা মহল। সূত্রের খবর, ১ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত  মেলা চলবে। দৈনিক ১০ লাখ পূণ্যার্থীর জমায়েত হওয়াার কথা। সংখ্যাটা এর কয়েকগুণ হতে পারে শাহি স্নানের তিনদিন। সোমবার, বুধবার ও ২৭ এপ্রিল।

স্বাস্থ্য দপ্তরের লোকজনকে উদ্ধৃত করে সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে, গত সোমবার পবিত্র স্নানে সামিল হয়েছিলেন ২৮ লাখের বেশি লোক। তবে মাত্র ১৮,১৬৯ জনের রবিবার  ও সোমবার টেস্ট করা  হয়েছে। তাতে ১০২ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। হর কি পৌরি ঘাটে ১৩টি আখাড়ার সাধুরা মিছিল করে স্নানে যান। দুজন স্বাস্থ্যকর্মীর একটি টিম টেস্ট কিট নিয়ে সেখানে হাজির হয়। সোমবার ৬ ঘন্টায় টেস্ট হয় মাত্র ১১ জনের। করোনা পজিটিভ হয়েছেন মাত্র একজন। মেলা ভবনের কাছে আরেকটি পরীক্ষা কেন্দ্র চারজন স্বাস্থ্যকর্মীর টিম জানিয়েছে, একজনেরও  টেস্ট হয়নি সোমবার।

উত্তরাখন্ড পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেল অশোক কুমারের দাবি, কুম্ভমেলা সুপার স্প্রেডার নয়, অর্থাত সেখানে থেকে হু হু করে অগুণতি লোকের মধ্যে সংক্রমণ ছড়ায়নি। দাবির স্বপক্ষে তাঁর যুক্তি, কর্তৃপক্ষ মেলায় আসা ৫৩ হাজার লোকের টেস্ট করিয়েছে। পজিটিভ হওয়ার হার মাত্র ১.৫ শতাংশ। মেলা উপলক্ষ্যে জড়ো হওয়া ভিড়ের ৯০ শতাংশ হরিদ্বারে থাকবে না, ফলে তাদের ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনাও নেই। যদিও ইতিমধ্যেই সংক্রমিত লোকজন যার যার নিজের এলাকায় ফিরে যাওয়ার পর ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা যে থেকে যাচ্ছে, সে ব্যাপারে কিছু বলেননি তিনি। কুম্ভমেলার মতো অনুষ্ঠানে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত প্রটোকল পুরোপুরি মানা সম্ভব নয়, সওয়াল করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, কুম্ভমেলায় যোগ দিতে হলে আরটি-পিসিআর টেস্ট নেগেটিভ হওয়া বাধ্যতামূলক। কিন্তু এ ব্যাপারেও কর্তৃপক্ষের ঢিলেঢালা আচরণ। সংবাদমাধ্যম যে ৫০ জনের সঙ্গে কথা বলেছে, তাদের অন্ততঃ ১৫ জনের নেগেটিভ রিপোর্ট না থাকলেও ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। মধ্যপ্রদেশ থেকে আসা সরকারি স্কুলশিক্ষক  রাজপ্রতাপ সিং সাংবাদিকদের  বলেছেন, আমাদের আরটি-পিসিআর রিপোর্ট উত্তরপ্রদেশ সীমান্তে নরসন চেকপয়েন্টে দেখাতে  হয়েছিল। কিন্তু মেলা চত্বরে কেউ তা দেখতে চায়নি। কোনও থার্মাল চেকিংও হয়নি।

মেলার কোভিড ইন-চার্জ অবিনাশ খন্না সাংবাদিকদের  জানিয়েছেন, থার্মাল স্ক্রিনিং, র ্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করা হয়েছে রাজ্যের সীমান্তে, রেল স্টেশন, ঘাটে। তবে সোমবার টেস্ট স্থগিত ছিল বলে জানিয়েছেন তিনি।

 

 

 

Kumbh Mela: As 102 test positive for Covid, top police official says it isn’t a super-spreader event

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More