দিল্লি, গোয়া, গুজরাত ও রাজস্থান থেকে মহারাষ্ট্রে এলে দেখাতে হবে করোনা-নেগেটিভ রিপোর্ট! না হলে খুলবে না দরজা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা আবহে রাজ্যকে করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচাতে আর কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করছেন মহারাষ্ট্র সরকার। দিল্লি, রাজস্থান, গোয়া ও গুজরাত থেকে মহারাষ্ট্রে আসতে গেলে আগে দেখাতে হবে পিসিআর টেস্টের করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট। সেটা ট্রেন রুটেই হোক বা বাস রুটে এমনকি বিমানেই হোক, রিপোর্ট দেখানো বাধ্যতামূলক বলে জানিয়েছেন মহারাষ্ট্র সরকার। করোনা সংক্রান্ত এই বিজ্ঞপ্তি জারি করেন মহারাষ্ট্রের মুখসচিব সঞ্জয় কুমার।

নতুন বিধি অনুযায়ী যাঁরা উপরিউক্ত চারটি রাজ্য থেকে বিমানে মহারাষ্ট্রে আসবেন, তাঁদের আগেই বিমানবন্দরে দেখাতে হবে পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট। একমাত্র ৭২ ঘণ্টা আগে করা টেস্টের রিপোর্টই গ্রহণযোগ্য বলে জানিয়েছেন আধিকারিকরা।

যাঁদের কাছে করোনা টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট থাকবে না, তাঁদের নিজেদের খরচে বিমানবন্দর আরটি- পিসিআর টেস্ট করতে হবে। পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পরেই যাত্রীদের যেতে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

বাসরুটে যাঁরা আসবেন তাঁদের জন্যও রয়েছে নির্দিষ্ট নিয়ম। তাঁদেরকেও দেখাতে হবে করোনা টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট। যদিও বাসে ওঠার আগে করোনার কোনও লক্ষণ আছে কিনা, গায়ে তাপমাত্রা কতটা তা মেপে নিয়েই বাসে উঠতে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। যদি কারো সামান্যও লক্ষণ রয়েছে বলে মনে হয়, তাহলে সঙ্গে সঙ্গেই অ্যান্টিজেন টেস্ট করা হবে। আর যতক্ষণ না পর্যন্ত অ্যান্টিজেন টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসছে, ততক্ষণ সেই যাত্রীকে বাসে ওঠার অনুমিত দেওয়া হবে না।

শুধু বাস বা বিমানেই নয়, ট্রেনের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম লাঘু করা হয়েছে। মহারাষ্ট্রের ট্রেনে ওঠার ৯৬ ঘণ্টা আগে পিসিআর টেস্ট করতে হবে।আর তার রিপোর্ট নেগেটিভ এলে তবেই ট্রেনে সফর করতে পারা যাবে। যদি ট্রেন থেকে নামার সময় কারোর একটুও লক্ষণ থাকে তাহলে সেই ব্যক্তির সঙ্গে সঙ্গে অ্যান্টিজেন টেস্ট করা হবে। রিপোর্ট নেগেটিভ এলেই তিনি নিজের বাড়ি বা কাজের জায়গাতে ফিরতে পারবেন।

যদি কারোর রিপোর্ট পজেটিভ আসে তাহলে তাঁকে কোভিড কেয়ার সেন্টারে পাঠানো হবে। চিকিৎসার সমস্ত খরচ বহন করতে হবে সেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকেই।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More