কুকুরের রক্তে প্রাণ বাঁচল ছোট্ট বিড়ালছানার! ভালবাসার ‘পাশবিক’ কাহিনি মুগ্ধ করেছে নেটিজেনদের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রক্ত দিয়ে বিড়ালের জীবন বাঁচাল কুকুর! চরম বিস্ময়কর এই ঘটনাটি ঘটেছে ইংল্যান্ডে। বিড়াল-কুকুরের এই অনন্য রক্তের সম্পর্কের কথা জেনে পশুপ্রেমী নেটিজেনরা মুগ্ধ!

ইংল্যান্ডের গেটশেড শহরের একটি পশু হাসপাতালের চিকিৎসক হেলেন স্প্রি জানিয়েছেন, শুক্রবার রাতে রোরি নামের এক ছোট্ট বিড়ালকে নিয়ে আসেন তার মালিক কিম এডওয়ার্ডস। বিষাক্ত ইঁদুর খেয়ে ফেলে শরীর খারাপ হয়ে যায় রোরির। একটানা বমি করতে করতে নেতিয়ে পড়ে সে। শেষে রক্তবমি করতে শুরু করে রোরি। মৃতপ্রায় অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা রোরিকে তখনই রক্ত দেওয়ার দরকার হয়ে পড়ে।

শুক্রবার রাতে তখন বন্ধ হয়ে গেছে ওই ভেট-ল্যাবরেটরি। ফলে অন্য কোনও বিড়াল খুঁজে বার করে, তার রক্ত পরীক্ষা করে রোরির গ্রুপের রক্তের সঙ্গে মিলিয়ে দেখার সময় নেই আর। এদিকে খুব তাড়াতাড়ি রক্ত না দিলে রোরিকে বাঁচানোও মুশকিল। কিন্তু ভরসা করে অন্য কোনও বিড়ালের রক্তও দেওয়া যাবে না তাকে। কারণ রক্তের গ্রুপ না মিললে হিতে বিপরীত হবে।

হেলেন জানান, রোরিকে বাঁচানোর একমাত্র উপায় ছিল একই গ্রুপের রক্ত আছে এমন কোনও কুকুরের রক্ত তাকে দেওয়া। সেই রক্তের মাধ্যমে অন্তত ততক্ষণ রোরির প্রতিরোধী ক্ষমতা বাঁচিয়ে রাখা যেতে পারে যতক্ষণ না রোরির গ্রুপের রক্ত আছে এমন অন্য কোনও বিড়াল পাওয়া যাচ্ছে। তবে এতেও ঝুঁকি ছিল। কুকুরের শরীরের রক্ত খাপ না-ও খেতে পারত রোরির শরীরে। কিন্তু প্রাণ বাঁচানোর জন্য এটুকু ঝুঁকি নিতে হয়েছে হেলেনকে। কারণ সেই মুহূর্তে রোরিকে রক্ত না দিলে সে এমনিই মারা যেত।

হেলেনের পরিচিত এক বন্ধুরই ছিল ওই একই গ্রুপের রক্তের কুকুর। তাঁকেই ফোন করেন হেলেন। সব শুনে সঙ্গে সঙ্গেই তিনি নিজের কুকুর বেলাকে নিয়ে হাজির হন ওই পশু হাসপাতালে। তার পরেই সেই কুকুরের শরীরের রক্ত সঞ্চালন করা হয় ছোট্ট রোরির শরীরে। ম্যাজিকের মতো কাজ হয়। ঘণ্টাখানেক পরেই অনেকটা চাঙ্গা হয়ে ওঠে সে। নিজে নিজে বিস্কুটও খায় মুখ দিয়ে।

হেলেন জানান, এভাবে দু’টি ভিন্ন প্রজাতির পশুর মধ্যে রক্ত সঞ্চালন একেবারেই বিরল ঘটনা। এমনটা তিনি আগে কখনও করেননি। কিন্তু বিকল্প কোনও পথ না থাকায় জরুরি অবস্থায় এটা করতে তাঁরা বাধ্য হয়েছেন। রোরির মালিক কিম জানিয়েছেন, হাসপাতাল থেকে ফিরে চমৎকার পরিবর্তন হয়েছে রোরির। আগের মতোই চঞ্চল হয়ে উঠেছে সে।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More