এদেশের পথকুকুররা এবার যাবে বিদেশে! আত্মনির্ভর ভারত গড়তে নয়া উদ্যোগ কেন্দ্রের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দেশবাসীর কাছে পথ কুকুরদের পোষ্য হিসেবে ঘরে ঠাঁই দেওয়ার আর্জি জানিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী, ‘মন কি বাত’-এর সেই আবেদনকেই এবার বড়সড় রূপ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্র সরকার। দেশীয় প্রজাতির কুকুরদের সংরক্ষণ করে তাদের বিদেশে রফতানি করার কথা ঘোষণা করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ সিং।

গত বছরের আগস্ট মাসের ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে পথ কুকুর সংরক্ষণের বার্তা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। তার পরেই সেপ্টেম্বরে এই সংক্রান্ত প্রস্তাব কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভায় পেশ করে সংসদের পশুপালন এবং মৎস্যসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক। কীভাবে দেশীয় কুকুরের প্রজাতিগুলোকে আরও উন্নত ও কার্যকরী করা যায়, বর্তমানে তা নিয়ে গবেষণাও করছেন ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ এগ্রিকালচারাল রিসার্চের গবেষকরা।

‘মন কি বাত’-এ ঠিক কী বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী? দেশবাসীর উদ্দেশ্যে তাঁর অনুরোধ ছিল, “এরপর থেকে যখনই আপনারা কোনও কুকুর পোষার কথা ভাববেন, অবশ্যই ভারতীয় কুকুরের কোনও প্রজাতি ঘরে আনবেন।” আত্মনির্ভর ভারত গড়ে তোলার ক্ষেত্রে এটিও একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হতে চলেছে বলে দাবি করেছিলেন তিনি। তাঁর কথায়, “আত্মনির্ভর ভারতই যখন জনগণের মূল মন্ত্র হয়ে উঠছে, তখন কোনও দিককেই বাদ দেওয়া উচিত নয়।”

দেশীয় প্রজাতির কুকুর, এমনকি পথ কুকুরদের রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়নের মাধ্যমে বিদেশে রফতানির উপযুক্ত করে তোলার যে প্রস্তাব কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভায় পেশ করা হয়েছিল তাতে মোটামুটি সব ডিপার্টমেন্টের তরফেই সবুজ সংকেত দেওয়া হয়েছে। শুধু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এবং পরিবেশ, বন ও আবহাওয়া মন্ত্রকের সম্মতি এখনও মেলেনি। এ প্রসঙ্গে পশুপালন এবং মৎস্যসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের এক আধিকারিক বলেছেন, “দুটি গুরুত্বপূর্ণ দফতরের ছাড়পত্র এখনও পাওয়া যায়নি। সেখান থেকে উত্তর এলেই আমরা এ ব্যাপারে কথাবার্তা এগোবো।”

জানা গেছে, জলাতঙ্ক রোগের প্রকোপ কমাতেও নতুন উদ্যোগকে কাজে লাগানোর কথা ভাবছে কেন্দ্র সরকার। রাস্তাঘাটে কুকুরের কামড়ে বিপদে পড়েন অনেকেই। আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে জলাতঙ্ককে একেবারে নির্মূল করার লক্ষ্য ধরেই এগোচ্ছে ভারত। মূলত রাষ্ট্রপুঞ্জের জলাতঙ্ক বিরোধী প্রকল্পে সামিল হতে এই নয়া প্রকল্প ঘোষণা করা হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী, দেশ জুড়ে শুধুমাত্র ২০১৮ সালেই কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৫৫ লক্ষ ৭৪ হাজার ৬৪৪ জন। কুকুরের কামড়ে মৃত্যু ঠেকাতে ২০১৭ সালে বিশ্বজনীন জলাতঙ্ক-বিরোধী প্রকল্পের কথা জানিয়েছিল রাষ্ট্রপুঞ্জ।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More