‘বাংলা বদল চাইছে’: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বক্তৃতার লাইভ হাইলাইটস

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ব্যান্ডেলের সাহাগঞ্জে বন্ধ ডানলপ কারখানার মাঠে রাজনৈতিক সভা করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তাঁর বক্তৃতার লাইভ হাইলাইটস—

  • বাংলা বদল চাইছে। এ ব্যাপারে মনস্থির করে ফেলেছে।
  • যে সব দেশ উন্নতি করেছে বা যারা উন্নতিশীল, তাদের মধ্যে অভিন্ন একটি বিষয় দেখা যায়। তা হল, এরা সকলেই আধুনিক পরিকাঠামো নির্মাণের পথে হেঁটেছে। সেটাই তাদের আরও আধুনিক করে তুলেছে।
  • আমাদের দেশেও আধুনিক পরিকাঠামো নির্মাণ করার দরকার ছিল। তা হয়নি। আমাদের এখন এক মুহূর্ত দেরি করলে চলবে না। সেই কারণেই গোটা দেশে পরিকাঠামো নির্মাণে জোর দেওয়া হয়েছে।
  • বাংলাতেও যোগাযোগ ও পরিবহণ সংক্রান্ত পরিকাঠামো নির্মাণে অগ্রাধিকার দেওয়া দরকার। আমাদের সরকার তাই করেছে।
  • বাংলায় পরিকাঠামো নির্মাণে কয়েক হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। রেল লাইনের সম্প্রসারণ ও বৈদ্যুতিকরণের কাজ চলছে। পূর্বের পণ্যবাহী করিডর থেকে বাংলার অনেক বড় লাভ হবে।
  • উত্তর ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি জেলার ছাত্রছাত্রী, চাকরিজীবিদের আজ আনন্দের দিন। নোয়াপাড়া থেকে দক্ষিণেশ্বর পর্যন্ত মেট্রো রেলের সম্প্রসারণের ফলে বহু মানুষের সুবিধা হবে।
  • এখানে যাঁরা ক্ষমতায় রয়েছেন তাঁরা পরিকাঠামো উন্নয়নের ব্যাপারে উদাসীন ছিলেন।
  • দেশভক্তির পরিবর্তে ভোট ব্যাঙ্ক, সবার কল্যাণের পরিবর্তে তুষ্টিকরণের রাজনীতিতে এখানে হাওয়া দেওয়া হয়েছে।
  • এমনকি দুর্গাপুজো করতে গিয়েও বাধা পেতে হয়েছে। বাংলার মানুষ এ সব সহ্য করবে না।
  • বাংলায় বিজেপি সরকার গঠন হলে, সব বাঙালি নিজের সংস্কৃতির গৌরব গান নিঃসঙ্কোচে করতে পারবেন। কেউ তাদের দমিয়ে রাখতে পারবে না।
  • এমন বাংলা গড়ব যেখানে সবার কল্যাণ হবে কোনও বিশেষ সম্প্রদায়ের প্রতি তুষ্টিকরণ হবে না।
  • এমন বাংলা গড়ব যেখানে কোনও তোলাবাজি থাকবে না।
  • স্বাধীনতার আগেও বাংলা অগ্রসর জনপদ ছিল। কিন্তু এখানে যাঁরা শাসন করেছে তাঁরা উন্নয়নের পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে।
  • তৃণমূলের নেতারা শান আর সম্মান বেড়ে চলেছে আর গরিবরা আরও গরিব হয়ে যাচ্ছে।
  • স্রেফ রাজনীতির জন্য বাংলায় আয়ুষ্মান যোজনা প্রকল্প বাস্তবায়িত করা হয়নি।
  • দেশের সব পরিবারের বাড়িতে পাইপ লাইনে জল সরবরাহের জন্য কেন্দ্র জল জীবন মিশন চালাচ্ছে। বাংলার জন্য এই মিশন আরও জরুরি। কারণ এখানে দেড় থেকে পৌনে দুই কোটি গ্রামীণ ঘরের মধ্যে স্রেফ ২ লাখ ঘরে পাইপ লাইনে জল পৌঁছয়। বলুন তো বাংলার কী অবস্থা করে রেখেছে!
  • ভারত সরকার পিছনে লেগে থেকে থেকে এখনও পর্যন্ত মাত্র ৯ লক্ষ ঘরে পাইপ লাইনে জল পাঠানোর ব্যবস্থা করতে পেরেছে। এরকম চললে কত বছরে বাংলার সব ঘরে জল পৌঁছনো যাবে ভগবান জানে।
  • আমি আপনাদের প্রশ্ন করতে চাই, বাংলার লোকেদের শুদ্ধ পানীয় জল পাওয়ার অধিকার রয়েছে কি নেই?
  • এখানকার সরকারের সেই লক্ষ্যে কাজ করা উচিত কিনা।
  • কেন্দ্রের সরকার ১৭০০ কোটি টাকা জলের জন্য তৃণমূল সরকারকে দিয়েছিল। এর মধ্যে মাত্র ৬০০ কোটি টাকাই খরচ করেছে। বাকি ১১০০ কোটি টাকা নিয়ে বসে রয়েছে।
  • বাংলার মা-বোনের এতে অসুবিধা হচ্ছে কিনা! বাংলার মেয়েদের সঙ্গে অন্যায় যারা করেছে তাদের কি মাফ করে দেওয়া যায়?
  • বাংলায় তাই আসল পরিবর্তন আনতে হবে। তার আশায় বাংলার নতুন প্রজন্ম রয়েছে।
  • হুগলিতে গঙ্গার তীরে লোহা আর ইস্পাতের কারখানা ছিল। সেই কারখানা গমগম করত। সেই সব কারখানার আজ কী অবস্থা! এখন বাংলার লোকেদের কাজের জন্য অন্য রাজ্যে যেতে হচ্ছে।
  • বাংলায় শিল্পায়ণের নীতিতে পরিবর্তন আনবে, দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে, যাতে উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয়।
  • এক সময়ে পাট শিল্পে বাংলায় প্রথম স্থানে ছিল। এখন সেই শিল্পের প্রতিও এখানকার সরকার উদাসীন।
  • হুগলির আলু চাষীদের দুরবস্থার কথাও কারও অজানা নয়। তাদের কে লুটছে তাও সবাই জানে। যতদিন এখানে খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র গড়ে উঠছে ততদিন চাষীদের কল্যাণ হবে না।
  • বাংলার মানুষের উদ্যমের অভাব নেই। সমস্যা হল এখানে উন্নয়নের পরিবেশ নেই।
  • কাটমানি, সিন্ডিকেটের চক্করে এখানে উন্নয়ন থমকে রয়েছে।
  • ভাড়ায় বাড়ি নিলেও কাটমানি দিতে হয়। এরা দুদিক থেকেই কাটমানি নেয়।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More