ছ’দিন বাদে মুম্বইয়ে কমল করোনা আক্রান্তের সংখ্যা

দ্য ওয়াল ব্যুরো : শনিবার সন্ধ্যায় জানা যায়, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় মুম্বইতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৮৮৮ জন। গত কয়েকদিনের তুলনায় এদিন আক্রান্তের সংখ্যা যথেষ্টই কম। শুক্রবার আক্রান্ত হয়েছিলেন ৭২২১ জন, বৃহস্পতিবার আক্রান্ত হয়েছিলেন ৭৪১০ জন। বুধবার আক্রান্ত হয়েছিলেন ৭৬৮৪ জন। এর আগে ৩১ মার্চ শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৫৩৯৪ জন। তার পরে শনিবারই বাণিজ্যনগরীতে সবচেয়ে কম সংখ্যক মানুষ করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। গত ১২ এপ্রিল শহরে দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা অতিক্রম করে সাত হাজার।

আক্রান্তের সংখ্যা কমলেও গত তিনদিনে মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় একই রয়েছে। শনিবার মারা গিয়েছেন ৭১ জন। শুক্রবার মারা গিয়েছেন ৭২ জন। বৃহস্পতিবার মারা গিয়েছেন ৭৫ জন।

দেশে অতিমহামারী শুরু হওয়ার পর থেকেই সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মুম্বই। শনিবার সন্ধ্যায় জানানো হয়, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় ৪০ হাজার মানুষের কোভিড টেস্ট করা হয়েছে। শুক্রবার প্রায় ৪২ মানুষের টেস্ট করা হয়েছিল। গত সপ্তাহে কোভিডের সংক্রমণের হার ছিল ১৮ শতাংশ। চলতি সপ্তাহে তা কমে দাঁড়িয়েছে ১৫ শতাংশ। ২৩ এপ্রিল শেষ হওয়া সপ্তাহে শহরে সংক্রমণ বৃদ্ধির হার ছিল ১.২৬ শতাংশ।

শনিবার বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন জানায়, শহরের ১২ টি হাসপাতালে ১৬ টি প্রোডাকশন প্ল্যান্ট বসানো হবে। প্ল্যান্টগুলি রোজ ৪৩ মেট্রিক টন অক্সিজেন উৎপন্ন করবে। ওই প্রকল্পের জন্য খরচ হবে ৯০ কোটি টাকা। প্রজেক্টের কাজ শেষ হতে লাগবে এক মাস।

মহারাষ্ট্রে এখন অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা ৭ লক্ষ। শুক্রবার সেখানে ৭৭৩ জন কোভিড রোগীর মৃত্যু হয়। অতিমহামারী শুরু হওয়ার পরে আর কখনও একদিনে মহারাষ্ট্রে এত বেশি মানুষ কোভিডে মারা যাননি। সংক্রমণের শৃঙ্খল ভাঙার জন্য গত বুধবার বেশ কয়েকটি কোভিড বিধি ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা আটটা থেকে ওই বিধিগুলি কার্যকরী হয়েছে। ১ মে সকাল সাতটা অবধি সেগুলি কার্যকর থাকবে।

মহারাষ্ট্রে জারি হয়েছে নাইট কার্ফু। এছাড়া সপ্তাহের শেষে জারি হচ্ছে লকডাউন। শনিবার সকালে কেন্দ্রীয় সরকার জানায়, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। অতিমহামারী শুরুর পরে দেশে করোনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১ কোটি ৬০ লক্ষ মানুষ। বর্তমানে দেশে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ২৫ লক্ষ ৫০ হাজার।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More