২ বা তার কম বাচ্চা থাকলেই মাতৃত্বকালীন ছুটি, দুই সন্তানের বাবাকে বিয়ে করা মহিলার আর্জি খারিজ পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টের

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সন্তানের জন্ম দেওয়ার পর মাতৃত্বকালীন ছুটি চেয়েছিলেন এক নার্সিং অফিসার। তিনি বিয়ে করেছেন যাঁকে, সেই লোকটির আগে থেকেই দুটি সন্তান আছে। ফলে ওই নার্সিং অফিসার তিন সন্তানের মা, এহেন কারণ দেখিয়ে তাঁর মাতৃত্বকালীন ছুটির দাবি নাকচ করে দিল পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট। আদালত জানিয়েছে, কোনও মহিলা দুটি বা তার কম সন্তানের, তারা বায়োলজিকাল হোক বা না হোক, মা হলেই এই ছুটি পেতে পারেন, নচেত নয়।
ওই নার্সিং অফিসার চন্ডীগড়ের পোস্ট-গ্র্যাজুয়েট ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল এডুকেশন অ্য়ান্ড রিসার্চে চাকরি করেন। সেখানকার ম্য়ানেজমেন্ট মাতৃত্বকালীন ছুটি মঞ্জুর না করায় সেই সিদ্ধান্তকে চ্য়ালেঞ্জ করে হাইকোর্টে যান তিনি। কিন্তু হাইকোর্টের বিচারপতি যশবন্ত সিং ও বিচারপতি সন্ত প্রকাশের বেঞ্চও তাঁকে নিরাশ করেছে।
ওই নার্সিং অফিসার ২০১৯ এর জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছুটি চেয়েছিলেন। কিন্তু পিজিআইএমইআর তা মঞ্জুর না করে সেই আবেদনকে আর্নড ছুটিতে বদলে দেয়। প্রথমে তিনি সেন্ট্রাল অ্য়াডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনালে (ক্যাট) যান। কিন্তু পিজিআইএমইআর আদালতকে জানায়, ওই মহিলা স্বামীর প্রথম বিয়ের ফসল দুই সন্তানের নাম সরকারি রেকর্ডে দিয়ে একাধিকবার ওদের চিকিত্সার সুবিধা ও বাচ্চা দেখাশোনার ছুটিছাটা নিয়েছেন। ১৯৭২ সালের সেন্ট্রাল সিভিল সার্ভিসেস (লিভ) সংক্রান্ত নিয়মবিধির উল্লেখ করে হাসপাতাল জানায়, তিনি ইতিমধ্যে দুই সন্তানের মা, তাই আর মাতৃত্বকালীন ছুটি পাওয়ার অধিকারী নন।
নার্সিং অফিসারটি যুক্তি দেন, তিনি নিজের প্রথম বায়োলজিকাল সন্তানের জন্য ছুটি চেয়েছেন, পিজিআইএমইআর দুটি বাচ্চা আগে থেকেই আছে, এই কারণ দেখিয়ে মাতৃত্বকালীন ছুটি পাওয়ার অধিকার থেকে তাঁকে বঞ্চিত করতে পারে না।
কিন্তু তাঁর যুক্তি উড়িয়ে হাইকোর্টের বেঞ্চ বলেছে, সার্ভিস সংক্রান্ত রুল খতিয়ে দেখা যাচ্ছে, মহিলা সরকারি কর্মী যদি দুটির কম বাচ্চার মা হন, শুধু তাহলেই মাতৃত্বকালীন ছুটি পেতে পারেন। আদালতকে উদ্ধৃত করে সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, যদিও আবেদনকারী তাঁর স্বামীর প্রথম বিয়ের ফলে জন্মানো দুই সন্তানের বায়োলজিকাল মা নন, তিনি এটা অস্বীকার করতে পারেন না যে, তিনি এখন ওদেরও মা। তিনি ওই দুটি বাচ্চার দেখভালের জন্য ছুটি নিয়েছেন, এটা বিবেচনায় রেখে বেঞ্চ বলেছে, সুতরাং এবার ওনার কোনও সন্তান হলে তাকে তৃতীয় বলে ধরতে হবে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.