বাঁশবেড়িয়ার তৃণমূল নেতাকে গুলির ঘটনায় গ্রেফতার পুর প্রশাসকের স্বামী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: হুগলির বাঁশবেড়িয়ার প্রাক্তন ভাইস চেয়ারম্যান আদিত্য নিয়োগীকে গুলি করার ঘটনায় গ্রেফতার করা হল তিন জনকে। তাদের মধ্যে রয়েছে প্রাক্তন চেয়ারম্যান তথা তারপর পুর প্রশাসকের দায়িত্বে থাকা অরিজিতা শীলের স্বামী সোনা শীলকে। তার দেহরক্ষী সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়কেও গ্রেফতার করেছে চুঁচুড়া থানার পুলিশ।

গত ১১ মে ভরা বাজারে গুলি করা হয় আদিত্যকে। গুলিবিদ্ধ অবস্থাতেই তিনি অভিযোগ করেন সোনার বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, “সোনার লোকজন আমাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিল। ওরা এর আগেও আমায় বহু মিথ্যে মামলায় জড়িয়েছিল। এবার খুন করতে চেয়েছিল।” সোনা শিবিরের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন সপ্তগ্রামের বিধায়ক তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তপন দাশগুপ্তও। গুলি কাণ্ডের পর থেকে সোনা শীল ফেরার ছিল।

ওই ঘটনার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই বড়সড় সিদ্ধান্ত নেয় পুর ও নগরোন্নয়ন দফতর। বাঁশবেড়িয়া পুরসভার পুর প্রশাসক পদ থেকে অপসারিত করা হয় অরিজিতাকে। তাঁর জায়গায় নতুন পুর প্রশাসক করা হয় গুলিবিদ্ধি আদিত্য নিয়োগীকেই।

এমনিতে অনেকেই বলেন, বাঁশবেড়িয়ার চেয়ারম্যান অরিজিতা হলেও আসলে সবটাই করতেন তাঁর স্বামী সোনা। জেলা তৃণমূলের মধ্যেও এ নিয়ে বিস্তর আলোচনা রয়েছে। তা ছাড়া তোলাবাজি, সিন্ডিকেট, ব্যান্ডেল থার্মাল পাওয়ারের ছাই বেআইনি ভাবে বিক্রি করা—একাধিক অভিযোগ রয়েছে সোনাদের বিরুদ্ধে।

সেদিন বাড়ির কালীপুজোর জন্য বাজারে ফল কিনতে গিয়েছিলেন আদিত্য। প্রকাশ্য রাস্তায় তাঁকে গুলি করে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় কলকাতায় স্থানান্তরিত করা হয়। এখনও তিনি চিকিত্‍সাধীন। আজ ধৃতদের আদালতে তোলা হবে।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More