পদ্মা সেতুর ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান, বসল ৩৩তম স্প্যান, দুরন্ত যোগাযোগে গতিশীল হবে বাংলাদেশ

লৌহজং, মুন্সিগঞ্জের সঙ্গে শরিয়তপুর ও মাদারীপুরকে যুক্ত করে বৃহত্তম বহুমুখী সড়ক ও রেল সেতু তৈরির পরিকল্পনা হয়েছিল ২০০৭ সালেই।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শীত আসতে চলেছে। করোনা আতঙ্কের মধ্যেও থমকে থাকেনি কাজ। নতুন বছরের আগেই বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজ প্রায় শেষের মুখেই চলে আসবে। দ্রুত গতিতে চলছে স্প্যান বসানোর কাজ। ৪১টির মধ্যে ৩৩টিই বসে গেছে ইতিমধ্যে। অক্টোবরের গোড়াতেই পদ্মা সেতুর ৪ ও ৫ নম্বর খুঁটির উপরে বসানো হয়েছিল ৩২ তম স্প্যান। আজ দুপুরের পর মুন্সিগঞ্জে মাওয়া প্রান্তে ৩ ও ৪ নম্বর খুঁটির উপর বসে গেছে ৩৩ তম স্প্যান। করোনা আবহে উন্নয়নের রেখাচিত্রটা বদলে যাওয়ার যে শঙ্কা দানা বেঁধেছিল তার কিছুই হয়নি। বরং পদ্মা সেতুর ৪ হাজার ৯৫০ মিটার অর্থাৎ প্রায় ৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান হয়েছে আজ থেকেই।

লৌহজং, মুন্সিগঞ্জের সঙ্গে শরিয়তপুর ও মাদারীপুরকে যুক্ত করে বৃহত্তম বহুমুখী সড়ক ও রেল সেতু তৈরির পরিকল্পনা হয়েছিল ২০০৭ সালেই। প্রথমে সেতুর নির্মাণ খরচ ১০ হাজার ১৬১ কোটি টাকা ধরা হলেও পরে আওয়ামি লীগ সরকার তার ব্যয়ভার বাড়িয়ে ২৮ কোটি করে। বহুমুখী সড়কের সঙ্গে রেল যোগাযোগও যুক্ত করা হয়। ২০১১ সাল থেকে সেতুন নির্মাণকাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল। শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল নাগাদ। তবে নানা কারণে এর গতি থমকে যায়। ২০১২ সাল নাগাদ ১২০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি বাতিল করে বিশ্বব্যাঙ্ক। তবে তাতে হার মানেনি শেখ হাসিনা সরকার। বরং সরকারি খরচেই সেতুর নির্মাণ চলতে থাকে। প্রায় ৬.১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতুর প্রায় ৫ কিলোমিটারই এখন তৈরি হয়ে গেছে। বছর শেষের আগে চারজেলাকে সংযুক্ত করে যানবাহন চলাচলও শুরু হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

17th span of Padma bridge installed; 2.55km now visible | The Daily Star

পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজের দায়িত্ব রয়েছে এক চিনা সংস্থার উপরে। জানা গিয়েছে, চিনের হোবেই প্রদেশের বন্দর কারখানায় যে ধরনের মজবুত স্প্যান ব্যবহার করা হয়, তাই দিয়েই সেতুর ভিত তৈরি হচ্ছে। এই স্প্যান হল বিশাল উঁচু ইস্পাতের তৈরি স্তম্ভ যাতে স্টিল ট্রাস বলে। পদ্মা সেতুকে ধরে রাখার জন্য এমন ৪১টি স্প্যান বসানোর কথা রয়েছে। এক একটি এমন স্তম্ভের দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটার। প্রায় ১৬০ মিলিমিটার পুরু ইস্পাতের তৈরি। এখনও অবধি ৩৩টি স্প্যান বসে গেছে। আরও সাতটি বসানোর কথা এ বছরেই। এর ভেতর দিয়েই ছুটবে রেল। কংক্রিটের সড়কে যানবাহন চলাচল করবে।

Padma bridge project progress 63pc now: Quader | theindependentbd.com

সেতু নির্মাণ সংস্থার তরফে যা জানানো হয়েছে তাতে অক্টোবরেই আরও দুটি স্প্যান বসে যাবে। ২৫ অক্টোবর ৭ ও ৮ নম্বর খুঁটিতে ৩৪ তম স্প্যান এবং ৩০ অক্টোবর ৮ ও ৯ নম্বর খুঁটিতে ৩৫ তম স্প্যান বসানো হবে। নভেম্বর ৪,১১,১৬ ও ২৩ তারিখের মধ্যে আরও চারটি বসে যাবে। ২ ও ১০ ডিসেম্বর সর্বশেষ ৮০ ও ৪১ তম স্প্যান বসানো হবে সেতুর খুঁটিতে।

4.05km of Padma Bridge visible as 27th span installed | 2020-03-28

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ভিত তৈরি করবে। দেশের কেন্দ্রভাগের সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিম অংশকে সংযুক্ত করবে। এতদিন ঢাকা মানিকগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জ থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল। মাঝে ভেদাভেদ তৈরি করেছিল পদ্মা নদী। এই সেতুই সেই সংযোগরক্ষার কাজ করবে। পিছিয়ে পড়া, অনুন্নত কৃষি নির্ভর জেলাগুলিতে শিল্প-কারখানা তৈরি হবে। সামাজিক, অর্থনৈতিক ও শিল্পের বিকাশে পদ্মা সেতু বড় মাধ্যম হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। পরিকল্পনা আরও রয়েছে। জানা গিয়েছে, ৩০ ইঞ্চি ব্যাসের গ্যাস পাইপ বসবে সেতুতে। বসানো হবে অপটিক্যাল ফাইবার। টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা ও হাই ভোল্টেজ বিদ্যুৎ সরবরাহের লাইন বসবে। যোগাযোগ ব্যবস্থা গতি পাবে। উন্নয়ের রূপরেখাই বদলে যাবে বাংলাদেশে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More