যাদবপুরে বাম-বিজেপি সংঘর্ষ, বছরের শেষ বিকেলেও অশান্তির আশঙ্কা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফের যাদবপুরে বাম-বিজেপি সংঘর্ষ। সোমবার রাতের ঘটনার জেরে মঙ্গলবার অর্থাৎ বছরের শেষ বিকেলেও অশান্তির আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

সোমবার সন্ধেবেলা যাদবপুর এইট বি বাসস্ট্যান্ড লাগোয়া জায়গায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির সমর্থনে সভা করছিল বিজেপি। অভিযোগ, বাম সমর্থক কয়েকজন ছাত্র ওই সভার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময়ে তাঁদের উপর হামলা হয়। এমনকি ছাত্রদের বাঁচাতে গিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা দয়িতা মজুমদারের উপরও গেরুয়া শিবিরের লোকজন হামলা করে বলে অভিযোগ। ওই অধ্যাপিকা ফেসবুকে একটি দীর্ঘ পোস্টও করেন। পাল্টা বিজেপির অভিযোগ, সাধারণ পথসভাকে অশান্তির জায়গায় নিয়ে গেছে বামেরা।

বিজেপি নেতা সোমনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কিছু নকশালপন্থী আর সিপিএমের হার্মাদ ছাত্র পথসভার মঞ্চে হামলা চালায়।” তাঁর আরও অভিযোগ, ওই অধ্যাপিকাই ছাত্রদের উস্কেছিলেন। মঙ্গলবার বিকেলে যাদবপুর থানার সামনে ওই ঘটনার প্রতিবাদে সভা ডেকেছে বিজেপি। অনেকের আশঙ্কা সেখানে আবার নতুন করে গণ্ডগোল হতে পারে।

যদিও এদিন সকাল পর্যন্ত খবর, যাদবপুর থানা ওই সভার অনুমতি দেয়নি। তবে বিজেপি জমায়েত করার জন্য ইতিমধ্যেই প্রস্তুতি শুরু করেছে। একটি হোয়াটসঅ্যাপ বার্তায় বলা হয়েছে, ৩১ ডিসেম্বর বিকেলে যাদবপুর থানার সামনে যুব মোর্চা ও মহিলা মোর্চার নেতৃত্ব-কর্মীর উপস্থিতি আবশ্যিক।

আরও পড়ুন: সদগুরুর কথা শুনুন, তিনি সহজ করে নাগরিকত্ব আইন বুঝিয়ে দিচ্ছেন, ভিডিও পোস্ট মোদীর

বিজেপির জমায়েতের খবর ছড়াতে পাল্টা প্রস্তুতি শুরু করেছে সিপিএম তথা বামেরাও। ঢাকুরিয়া, যাদবপুর, বাঘাযতীন, কসবা এলাকার কর্মীদের তৈরি থাকার বার্তা দেওয়া হয়েছে সিপিএমের তরফে।

বাবুল সুপ্রিয়কে ঘেরাও কাণ্ডের জেরে জল অনেক দূর গড়িয়েছিল। সেই কথা মাথায় রেখে প্রস্তুত প্রশাসনও। এমনিতেই বছরের শেষ দিন উৎসবের আমেজ শহরজুড়ে। তা সামলাতেই কালঘাম ছোটার অবস্থা পুলিশের। তার উপর যাদবপুর কাণ্ড প্রশাসনেরও মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছে।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More