আফগানিস্তানে আত্মসমর্পণ ৯০০ আইএস জঙ্গির, উদ্ধার ১০ জন ভারতীয় মহিলা ও শিশু

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অস্ত্র ফেলে আত্মসমর্পণ আইএস জঙ্গিদের। আফগান সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নানগারহারে আফগান বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে ইসলামিক স্টেটের প্রায় ৯০০ জঙ্গি। তাদের মধ্যে বেশিরভাগ পাকিস্তানের বাসিন্দা। কিছু ভারতীয়, কেরলের বাসিন্দা। নজিরবিহীন ঘটনা  তবে এই আত্মসমর্পণ কি সত্যিই জীবনের মূল স্রোতে ফেরার ইচ্ছা, নাকি অন্য কোনও পরিকল্পনা রয়েছে ইসলামিক স্টেটের সে ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত নয় আফগান বাহিনী।

আফগান ন্যাশনাল সিকিউরিটি ফোর্স জানিয়েছে, নানগারহারে কয়েক বছর ধরেই আইএসের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছিল বাহিনী। গত বছর নভেম্বরে ৯৩ জন আইএস জঙ্গি আত্মসমর্পণ করে যাদের মধ্যে ১৩ জন ছিল পাকিস্তানি। সূত্রের খবর, জঙ্গি তালিম নিয়ে কেরল থেকে আফগানিস্তানে গিয়ে ঘাঁটি গেড়েছিল বেশ কিছু ভারতীয় যুবক। সঙ্গে ছিল তাদের পরিবারও। এমনই ১০ জন মহিলা ও শিশুকে আইএস ডেরা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তারা জানিয়েছে, জোর করে ধর্মান্তরিত করে তাদের আফগানিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয়েছিল অস্ত্র।

আফগান সরকার বরাবরই জঙ্গি গোষ্ঠী উদ্দেশে বার্তা দিয়েছে আলোচনায় মাধ্যমে শান্তি বজায় রাখতে চায় তারা। তালিবান জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে এক টেবিলে বৈঠক করতে রাজি আফগান প্রেসিডেন্ট আসরাফ ঘানি। সূত্রের খবর, আফগানিস্তানে আইএস ও তালিবানদের মধ্যে ক্ষমতা দখলের লড়াইও দীর্ঘদিনের।  আফগান তালিবানের মুখপাত্র জাবিউল্লা মুজাহিদ আইএস-এর বিরুদ্ধে যুদ্ধের ডাক দিয়েছিল। আইএস জঙ্গিদের খুন করা হবে বলে তাদের তরফে ঘোষণা করা হয়েছিল। পরবর্তীকালে আইএস-ও তালিবানের বিরুদ্ধে একই পদক্ষেপ করে।

পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান সীমান্তে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ‘ফাটা’। পুরো নাম— ফেডেরালি অ্যাডমিনিস্টার্ড ট্রাইবাল এরিয়া (এফএটিএ)। আফগান তালিবান, তেহরিক-এ-তালিবান (যাদের কার্যকলাপ মূলত পাকিস্তানে), আইএস-সহ নানা জঙ্গিগোষ্ঠীর মুক্তাঞ্চল হয়ে উঠেছিল এই উপজাতি প্রধান অঞ্চল অনেক দিন আগেই।দফায় দফায় আফগান বাহিনী অভিযান চালায় এই এলাকায়। অনেকেই মনে করছেন, আফগানিস্তানে ক্রমশই কোণঠাসা হয়ে পড়ছে ইসলামিক স্টেট। তাই হয়ত এই আত্মসমর্পণের সিদ্ধান্ত।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More