‘মূর্খ’ ফৌজির কথা শুনে মার্কিনরা ক্লান্ত, করোনা থেকে মুক্তি চায়, ট্রাম্পের তোপের মুখে অ্যান্থনি

আমেরিকায় কোভিড এক্সপার্ট টিমের দায়িত্ব রয়েছে অ্যান্থনি ফৌজির উপরেই। ভ্যাকসিন গবেষণার নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি, দেশের কোভিড গাইডলাইন তত্ত্বাবধানও করেন তিনি।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বরাবরই স্পষ্ট বক্তা হোয়াইট হাউসের মুখ্য স্বাস্থ্য উপদেষ্টা তথা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশিয়াস ডিজিজের প্রধান অ্যান্থনি ফৌজি। আমেরিকায় করোনা সংক্রমণের বাড়াবাড়ির জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্টের দিকে আঙুল তুলতেও দ্বিধা করেননি তিনি। বারবার দায়ী করেছেন ট্রাম্পের উদাসীনতা ও খামখেয়ালিপনাকে। তার জন্য মার্কিন সরকারের বিরাগভাজনও হয়েছেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারে এবার হোয়াইট হাউসের মুখ্য স্বাস্থ্য উপদেষ্টাকেই ‘মূর্খ’ বলে সম্বোধন করে বসলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

আমেরিকায় কোভিড এক্সপার্ট টিমের দায়িত্ব রয়েছে অ্যান্থনি ফৌজির উপরেই। ভ্যাকসিন গবেষণার নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি, দেশের কোভিড গাইডলাইন তত্ত্বাবধানও করেন তিনি। ট্রাম্পের দাবি, করোনা নিয়ে মার্কিন বাসিন্দাদের বিভ্রান্ত করেছেন ফৌজি। সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন।

ট্রাম্পের বক্তব্য, “আমেরিকাবাসীরা কোভিড শুনে শুনে ক্লান্ত। তারা বলছে, এবার ছেড়ে দাও। নিজেদের মতো করে বাঁচতে দাও। ফৌজি আর কোভিড টিমের বাকি সব ডাক্তাররা মূর্খ। মানুষকে জোর করে বেঁধে রাখছে।”

সঠিক পথে যাচ্ছে না আমেরিকা, কোভিড মোকাবিলায় ভুল পদক্ষেপ নিচ্ছে, সেনেট কমিটির বৈঠকে বারবার এই প্রসঙ্গই তুলেছিলেন অ্যান্থনি ফৌজি। বলেছিলেন করোনা মোকাবিলায় সঠিক পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না। খোদ মার্কিন সরকারই লকডাউনের বিধি মানছেন না। তাই আমজনতাও সামাজিক মেলামেশা চালিয়ে যাচ্ছে। সে কারণে সংক্রমণও পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে। করোনা সঙ্কটের মধ্যেই নির্বাচনী প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সে জন্য জায়গায় জায়গায় জন সমাবেশও করছেন। প্রচারসভায় ভিড় বাড়াতে সামাজিক দূরত্ববিধির কড়াকড়িতে ছাড় দেওয়াও হয়েছে।  সম্প্রতি কোভিড সারিয়ে হাসপাতাল থেকে ফিরে আসার পরে ট্রাম্পের বেপরোয়া মনোভাব নিয়েও মুখ খুলেছিলেন ফৌজি। সবমিলিয়ে তাই এখন মার্কিন প্রেসিডেন্টের চক্ষুশূল তিনি।

করোনা সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যার নিরিখে বিশ্বের কোভিড আক্রান্ত দেশগুলির তালিকায় শীর্ষেই রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্পের দাবি, আমেরিকায় এখন করোনায় মৃতের সংখ্যা ২ লাখের বেশি। ফৌজির কথা শুনে চললে মৃত্যু সাত থেকে আট লাখ ছাড়িয়ে যাবে। কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফৌজিকে সরিয়ে দেওয়ারই মতলব করছেন ট্রাম্প। এর আগেও ফৌজিকে হোয়াইট হাউস থেকে সরিয়ে দেওয়ার কথাবার্তা চলছিল। প্রবীণ স্বাস্থ্য উপদেষ্টা সরকারের বিরুদ্ধেই আঙুল তুলছেন, যা প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বড় প্রভাব ফেলতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে।

মার্কিন সেনেট কমিটির চেয়ারম্যান লেমার আলেক্সান্ডার বলেছেন, পাঁচ দশকেরও বেশি হোয়াইট হাউসে রয়েছে অ্যান্থনি ফৌজি। এখনও অবধি ৬ জন প্রেসিডেন্টের মুখ্য স্বাস্থ্য উপদেষ্টার দায়িত্ব সামলেছেন। তাঁর কথা মার্কিন নাগরিকরা গুরুত্ব দিয়ে শোনে। ফৌজির কথা শুনে চললে এতদিনে আমেরিকায় করোনা মহামারী অনেকটাই ঠেকানো যেত। স্কুল-কলেজে স্বাভাবিকভাবে যেতে পারত বাচ্চারা। এত মৃত্যুও হত না। অতিমহামারী ঠেকাতে এতদিন অবধি ফৌজি যা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাতে কোনও ভুল নেই বলেই দাবি আলেক্সান্ডারের।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More