শনিবার, ফেব্রুয়ারি ১৬

এ বার চিটফান্ড কাণ্ডে ইডি’র তলব রাজীব কুমারের দুই অধস্তনকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: চিটফান্ড কাণ্ডে কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাত চরমে। সম্প্রতি কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানা নিয়ে তোলপাড় হয়েছে কলকাতার রাজপথ। এ বার রোজভ্যালি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রাজীব কুমারের অধস্তন দুই ডিসিকে ডেকে পাঠালো এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।

এই দুই অফিসার হলেন ডিসি এসটিএফ ( STF ) মুরলীধর শর্মা ও ডিসি ইএসডি ( ESD ) কল্যাণ মুখোপাধ্যায়। রোজভ্যালি কাণ্ডে জিজ্ঞাসাবাদের সময় যাতে এই দুই অফিসার সহযোগিতা করেন, তার জন্য রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিবকে চিঠি দিয়ে আবেদন জানিয়েছে ইডি।

অন্যদিকে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেওয়ার পর শিগগির পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে জেরা করতে চায় সিবিআই। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার ডিএসপি তথাগত বর্ধনের নেতৃত্বে ন’সদস্যের এক বিশেষ টিম গঠন করা হয়েছে। তবে এই মুহূর্তে দিল্লিতে সিবিআই অধিকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় রয়েছেন এই বিশেষ টিমের সদস্যরা।

কলকাতায় ফেরার পরেই জিজ্ঞাসাবাদের দিন জানানো হবে বলে খবর। সূত্রের খবর, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর রাজীব কুমার সিবিআইকে চিঠি লিখে জানিয়েছেন, ৮ ফেব্রুয়ারি হলে তিনি হাজিরা দিতে প্রস্তুত। তবে এ ব্যাপারে সিবিআইয়ের তরফে এখনও কিছু জানানো হয়নি।

সিবিআই সূত্রে খবর, কমিশনারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তোড়জোড় শুরু করেছে সিবিআই। কলকাতায় নয়, শিলংয়ে জেরা করা হতে পারে রাজীব কুমারকে। বুধবারই দিল্লিতে সিবিআই অধিকর্তার সঙ্গে বিশেষ তদন্তকারী টিমের বৈঠকের পরেই তাঁরা কলকাতা ফিরবেন। তারপরই উড়ে যাবেন শিলং।

এ দিকে বুধবার দিল্লিতে ইডি অফিসে হাজিরা দিয়েছেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢড়ার স্বামী রবার্ট বঢড়া। এ ব্যাপারে ফের উষ্মা প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানার পর গত রবিবার থেকে মেট্রো চ্যানেলে ধর্ণায় বসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তের পর মঙ্গলবার এই ধর্ণা প্রত্যাহার করেছেন মমতা। এ দিনও তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, ভোট এগিয়ে আসতেই বেশি সক্রিয় হয়ে উঠেছে সিবিআই ও ইডি। বিজেপি সরকার নিজেদের স্বার্থে এইসব সংস্থাকে কাজে লাগাচ্ছে।

আরও পড়ুন

‘গদ্দার’ যতই মোদীকে আনুন, বড়মা আমাদেরই: ঠাকুরনগরে বালু

Shares

Comments are closed.