কলকাতায় এল কিউমিন! পাঁচ তারার রাজকীয় খাবার পৌঁছে দেবে ঘরের দরজায়

তাজ বেঙ্গলের মেনু মিলিয়ে অর্ডার দিলেই বাড়িতে চলে আসবে নামী শেফের হাতের তৈরি চিংড়ি বা লাল ঝোলে ডুমো ডুমো মাটনের কোনও পদ অথবা ভিভান্তার ডেলিকেসি।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: লকডাউনে রসনাতেও তালা পড়ে গেছে। রেস্তোরাঁর নিভু নিভু আলোয় বসে প্লেট ভর্তি খাবারের গন্ধে আহা করার সে দিন আর কোথায়! করোনার ভয় আর আতঙ্কে রেস্তোরাঁর পাট চুকিয়ে হয় বাড়িতেই খাবার অর্ডার দিতে হচ্ছে, না হলে রেস্তোরাঁর স্টাইলে খাবার বানানোর চেষ্টা করে রসনাকে শান্ত করার চেষ্টা করছে ভোজনরসিক বাঙালি। কব্জি ডুবিয়ে খাওয়ার সাধ পরিস্থিতি ‘নিউ নর্মাল’-এ বাতিল করতে হয়েছে। কিন্তু যদি এমন হয়, এক ফোনেই পাঁচা তারা হোটেলের রাজকীয় খাবার একেবারে বাড়ির দরজায় এসে হাজির হবে!  অন্দরবাসে ভোজনবিলাসী বাঙালির রসনা তাহলে একেবারে মাখোমাখো হয়ে যাবে।

সেই সুবিধাই কলকাতায় নিয়ে আসছে কিউমিন (QMIN) । ইন্ডিয়ান হোটেলস কোম্পানি লিমিটেড (আইএইচসিএল)-এর গুরমেট ফুড ডেলিভারি প্ল্যাটফর্ম হল কিউমিন। এমন এক অনলাইন ফুড ডেলিভারি পরিষেবা যা শহরের নামীদামি রেস্তোরাঁর খাবার ঘরের দরজায় পৌঁছে দেবে।

তাজ বেঙ্গলের মেনু মিলিয়ে অর্ডার দিলেই বাড়িতে চলে আসবে নামী শেফের হাতের তৈরি চিংড়ি বা লাল ঝোলে ডুমো ডুমো মাটনের কোনও পদ অথবা ভিভান্তার ডেলিকেসি। আপাতত চার নামী রেস্তোরাঁকেই রাখা হয়েছে তালিকায়। তাজ বেঙ্গলের চিনোইসেরি, সোনারগাঁও, ক্যাল-২৭ এবং ভিভান্তার মিন্ট।

শহরে বসে খাঁটি চিনা স্বাদের খাবার মানেই চিনোইসেরি। শহরের ঐতিহ্যও বলা যায়। অন্যদিকে বহু বছর ধরেই বাঙালির স্বাদবদলে নতুনত্ব নিয়ে আসছে তাজ বেঙ্গলের সোনারগাঁও। একাধিক পুরস্কারও রয়েছে এই রেস্তোরাঁর ঝুলিতে। মাল্টি-কুইজিন রেস্তোরাঁর ট্রেন্ড মানেই ক্যাল-২৭, মিন্ট। অন্দরবাসে যে খাবারগুলো শুধু ভাবনাতেই রয়েছে সেগুলো বাস্তবেও নিয়ে আসবে কিউমিন। ডাল সোনারগাঁও, বাঙালি স্টাইলে কষা মাংস, সাবেক চিংড়ির মালাইকারি, চিনোইসেরির কুচমুচে ফ্রায়েড স্পিনাচ, ডিমসাম, ক্যাল ২৭ রেস্তোরাঁর কন্টিনেন্টাল থিন ক্রাস্ট পিৎজা এবার অর্ডার করলেই বাড়ির দরজায় এসে হাজির হবে।

“কলকাতার রান্নার স্বাদ সারা ভারতেই পরিচিত। আইএইচসিএলের তালিকায় থাকা শহরের নামী রেস্তোরাঁর খাবার বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিতেই এই কিউমিন গুরমেট ফুড ডেলিভারি পরিষেবা। অনলাইনেই পাঁচ তারার ভোজনবিলাসে মাতবে কলকাতাবাসী,” বলেছেন তাজ বেঙ্গলের এরিয়া ডিরেক্টর (ইস্ট) এ জেনারেল ম্যানেজার মনীশ গুপ্ত।

স্বাস্থ্য বিধি ও সুরক্ষার সব নিয়ম মেনেই খাবার ডেলিভারি করা হবে। কিউমিনের তরফে জানানো হয়েছে, যাঁরা বাড়ি বাড়ি খাবার নিয়ে যাবেন তাঁদের দেওয়া হবে হেডগিয়ার, স্যানিটাইজার। ডেলিভারি প্যাকও বিশেষ নজরদারিতেই বানানো হবে।

কিউমিনে খাবার অর্ডার দেওয়ার জন্য টোল ফ্রি নম্বর চালু হতে চলেছে। গ্রাহকরা ১৮০০২৬৬৭৬৪৬ নম্বরে ফোন করে পছন্দের ডিশ অর্ডার করতে পারবেন। তাছাড়া, খুব তাড়াতাড়ি কিউমিন মোবাইল অ্যাপও চালু হতে চলেছে। আগামী মাস থেকে গুরমেট কিউমিন শপ চালু হওয়ার কথাও রয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More