রাহুল-প্রিয়াঙ্কা যখন ছোট, সফদরজঙের বাড়িতে তাদের ম্যাজিক দেখাতেন অশোক গেহলট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মুগ্ধ হয়ে তাঁর দিকে তাকিয়ে থাকত ভাই, বোন। দিদি প্রিয়াঙ্কা গান্ধী তখন স্কুলে। ভাই রাহুল আরও কিছুটা ছোট। একটা সরু পাইপের ভিতর থেকে লোকটা গুচ্ছ গুচ্ছ ফুল বের করে ধরিয়ে দিচ্ছে রাজীব-সনিয়ার ছেলে-মেয়ের হাতে। আর তারাও সফদরজঙের বাড়িতে অনাবিল আনন্দে হাততালি দিয়ে উঠছে সেই জাদু দেখে। আজকে সেই রাহুলই কংগ্রেসের সভাপতি। আর সত্তরের দোরগোড়ায় পৌঁছনো সে দিনের ম্যাজিশিয়ান আজকে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে। অশোক গেহলট।

সে দিন যে ছোট্ট ছেলেটা তাঁর জাদু দেখে খিলখিলিয়ে হেসে উঠত, আজ তিনিই (হয়তো) সিলমোহর দিতে চলেছেন অশোক গেহলটের মুখ্যমন্ত্রিত্বে।

‘গিল্লি-বিল্লি।’ দলের অনেক বর্ষীয়ান নেতাই তাঁকে এনামে ডাকেন ঘরোয়া আড্ডায়। ছোট থেকেই ম্যাজিক তাঁর পছন্দের। তাঁর বাবা বাবু লক্ষ্মণ সিং দক্ষ ছিলেন নাম করা জাদুকর। ম্যাজিক দেখাতে ঘুরতেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। এ হেন বাবার ছেলে অশোক তাই ছোট থেকেই জানতেন ‘মুঠি’র মন্ত্র। স্কুলে যখন মাস্টারমশাই ছাত্রদের পড়াশুনোর বাইরে অন্য কিছু করে দেখাতে বলতেন, ‘গিল্লি-বিল্লি’ তখন ম্যাজিক করে উধাও করে দিতেন শিক্ষকের টেবিল থেকে চক, ডাস্টার। রাজনীতিতে না এলে যে ম্যাজিকটাই মন দিয়ে করতেন, তাও জানিয়েছেন বর্ষীয়ান এই কংগ্রেস নেতা।

তাঁকে যদি জিজ্ঞেস করা হয় কবে থেকে কংগ্রেস করেন? তাহলে উত্তর দেন, “সঞ্জয় গান্ধী যখন হাফ প্যান্ট পরত। তখন থেকে আমি কংগ্রেস করি।” ১৯৭০-এর শুরুর দিকে যখন বাংলাদেশ থেকে ছিন্নমূল মানুষ এ দেশে এসে আশ্রয় নিচ্ছেন, সেই সময় ইন্দিরার সরকার সারা দেশে রিফিউজি ক্যাম্প খুলেছিল। জয়পুরে সেরকমই একটি ক্যাম্পে স্বেচ্ছাসেবকের কাজ  করেছিলেন গেহলট। নজরে পড়েন ইন্দিরার। ছাত্র সংগঠনের রাজ্য সভাপতির দায়িত্ব দিয়ে শুরু। তারপর আর ফিরে তাকাতে হয়নি।

২০১৩ সালের নির্বাচনে বিজেপি-র কাছে কার্যত গো হারা হেরেছে কংগ্রেস। বিপুল জনমত নিয়ে বসুন্ধরা রাজে মসনদে। ২০০৮ থেকে ১৩ পর্যন্ত গেহলটই ছিলেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু ২০১৫ সালে জয়পুরের ঘটল এক অদ্ভুত ঘটনা। সারা দেশের জাদুকরদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল সে বার জয়পুরে। প্রধান অতিথি প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী গেহলট। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যাওয়া জাদুকররা জানেন, গেহলট তো প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। উদ্বোধন করবেন সম্মেলনের। বক্তৃতা দিয়ে চলে যাবেন। যেমন আর পাঁচজন রাজনীতিবিদ করেন। কিন্তু কোথায় কী! গেহলট পোডিয়ামে দাঁড়ানো মাত্রই দেখাতে শুরু করলেন ম্যাজিক। অনেকে বলেন, মরু রাজ্যের অনেকেই তার আগে জানত না, গেহলট ম্যাজিক জানেন।

রাজস্থান ভোটের ফল প্রকাশের পর, অনেকেই বলতে শুরু করেছেন, ‘গেহলটের ম্যাজিক, বসুন্ধরার জন্য ট্র্যাজিক!’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More