‘পাঁচটা মেয়ে হল, একটাও ছেলে হল না’, মোদীর সমালোচনা করতে গিয়ে বেফাঁস কংগ্রেস নেতা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিজেপি তথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্লোগান দিয়েছিলেন, ‘ সব কা সাথ, সব কা বিকাশ।’ মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস নেতা জিতু পাটুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর এই স্লোগান নিয়ে.সমালোচনা করতে গিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে বসলেন। যা নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠতেই টুইট মুছে ক্ষমা চাইতে হল তাঁকে।

কী টুইট করেছিলেন জিতু?

লিখেছিলেন, “পাঁচটা মেয়ে হয়ে গেল। কিন্তু এখনও একটাও ছেলে হল না। বিকাশ এল না।” নোটবন্দি, জিএসটি, মন্দা, বেকারত্ব এবং মুদ্রাস্ফীতি–এই পাঁচটি বিষয়কে কন্যা সন্তানের সঙ্গে তুলনা করেন মধ্যপ্রদেশের এই কংগ্রেস নেতা। তিনি বিকাশকে তুলনা করেন পুত্র সন্তানের সঙ্গে।

ওই টুইট নিয়ে তোলপাড় পড়ে যায় মধ্যপ্রদেশের রাজনীতিতে। মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান বলেন, “ওঁর দলের প্রধান একজন মহিলা। উনি কি তাহলে তাঁকেও অপমান করতে চাইছেন? নাকি সনিয়া গান্ধী তাঁকে মহিলাদের অপমান করার দায়িত্ব দিয়েছেন?” তিনি আরও বলেন, মোদী সরকার বেটি বাঁচা – বেটি পড়াও কর্মসূচি নিচ্ছে আর.কংগ্রেস নেতা মহিলাদের অপমান করছেন!রে রে করে ওঠে মধ্যপ্রদেশের মহিলা কমিশন। স্পষ্ট বলা হয়, জিতু পাটোয়ারির থেকে ব্যাখ্যা চাওয়া হবে।

জিতু পাটোয়ারি শুধু কংগ্রেস নেতা নন। তাঁর আরও একটি পরিচয় রয়েছে। তা হল, তিনি মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী। অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রীর যদি এই ধরনের মধ্যযুগীয় লিঙ্গবৈষম্যমূলক মন্তব্য হয় তাহলে দেশের অবস্থা কোন দিকে যাচ্ছে বোঝাই যাচ্ছে।

চাপে পড়ে যায় কংগ্রেস। এক ঘণ্টার মধ্যে ওই বিতর্কিত টুইট মুছে ক্ষমা চান জিতু। তিনি লেখেন, “কারও ভাবাবেগে আঘাত করার উদ্দেশ্য আমার ছিল না। কোনও ধরনের বৈষম্যমূলক রাজনীতিকে কংগ্রেস অনুমোদন করে না। আমার কাজে যদি কারও খারাপ লেগে থাকে তাহলে আমি দুঃখিত, ক্ষমাপ্রার্থী।”

গত সপ্তাহেই কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কেকে শৈলজাকে ‘করোনা রানি’ ও ‘নিপা রাজকুমারী’ বলে আক্রমণ শানিয়েছিলেন কেরলের কংগ্রেস সভাপতি মুল্লপল্লি রামচন্দ্রন। তা নিয়েও বিস্তর সমালোচনা হয়েছিল। এবার সেই তালিকায় নতুন সংযোজন জিতু পাটোয়ারি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More