দৈনিক আক্রান্ত নামল ৫৬ হাজারে, কনটেইনমেন্ট জ়োন বাড়ছে মহারাষ্ট্র, দিল্লি, চণ্ডীগড়ে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: টানা পাঁচদিন পরে ৬০ হাজারের নীচে নামল দৈনিক সংক্রমণ। সংক্রমণের হারও কিছুটা কম বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন সংক্রমণ ধরা পড়েছে ৫৬ হাজারের কাছাকাছি। দৈনিক বৃদ্ধি কিছুটা কমলেও চিন্তা বাড়াচ্ছে কোভিড অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের হিসেব বলছে, দেশে ভাইরাস সক্রিয় রোগীর সংখ্যা সাড়ে পাঁচ লাখ ছুঁতে চলেছে। কোভিড অ্যাকটিভ কেসের হারও বেশি ৪.৪৭ শতাংশ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সমীক্ষা বলছে, কোভিড সংক্রমণের হার ফেব্রুয়ারিতে ছিল ১.৩৫ শতাংশ, মার্চের ১৫ থেকে ২১ তারিখের মধ্যে বেড়ে হয়েছে ১.৭৮ শতাংশ। কোভিড পজিটিভ রোগীর সংখ্যা বাড়ছে কলকাতাতেও। সংক্রমণের হার বেড়ে হয়েছে ৩.০৫ শতাংশ। বাংলায় এখন কোভিড পজিটিভ রোগীর সংখ্যা চারশোর বেশি। মহারাষ্ট্র সহ আট রাজ্যে সংক্রমণের হার বেশি। পাঞ্জাব, মধ্যপ্রদেশ, দিল্লি, তামিলনাড়ু, ছত্তীসগড়, কর্নাটক, হরিয়ানা, রাজস্থানে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ধাক্কা দিয়েছে বলেই আশঙ্কা করছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক।

মহারাষ্ট্রে এখন করোনার হটস্পট অমরাবতী। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর জানাচ্ছে, চলতি বছর ফেব্রুয়ারি থেকে যবতমল ও অমরাবতীতে সংক্রমণের হার শীর্ষে উঠেছিল। রাজ্যের প্রত্যন্ত এলাকাগুলিতে এখন করোনা লাগামছাড়া। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ বলছেন, এক সপ্তাহে মহারাষ্ট্রের ২৫টি জেলা থেকে সর্বোচ্চ ৫৯.৮ শতাংশ নতুন সংক্রমণ ধরা পড়েছে। রাজ্যে এখন কনটেইনমেন্ট জ়োনের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। চণ্ডীগড়ের অন্তত ২৫টি এলাকাকে কনটেইনমেন্ট জ়োন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

বৃহন্মুম্বই পুরসভা জানিয়েছে, মুম্বইতে করোনা রোগীর সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তাতে আইসোলেশন বেডের সংখ্যা আরও বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এই মাসের শেষ অবধি কড়া কোভিড বিধি জারি হয়েছে মারাঠা রাজ্যে, প্রয়োজনে তা আরও বাড়ানো হতে পারে। দোকানবাজার, রাস্তাঘাটে মাস্ক বাধ্যতামূলক, বেসরকারি অফিস. সিনেমা হল, রেস্তোরাঁগুলিতে ৫০ শতাংশের বেশি উপস্থিতি দেখলেই কড়া ব্যবস্থা নেবে পুলিশ। এবার প্রকাশ্যে হোলি খেলাতেও নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। মুম্বইয়ের আন্ধেরি এলাকাকে করোনার নতুন হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সুরক্ষার খাতিরে জুহু বিচ বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে বলে খবর সামনে এসেছে।

দিল্লিতে বিমান বন্দর, রেল স্টেশন ও বাস টার্মিনাসে কোভিড টেস্টের সংখ্যা বাড়ানোর ঘোষণা করেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সরকার। জনসমাগম বেশি হয় যে জায়গাগুলিতে সেখানে র‍্যান্ডম করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সরকার জানিয়েছে, বাজারে, শপিং মলে ও অন্যত্র যেখানে বহু লোক জড়ো হয়, সেখানে কোভিড বিধি মানতে হবে কঠোরভাবে। যে রাজ্যগুলিতে কোভিড ব্যাপক হারে ছড়িয়েছে, সেখান থেকে কেউ দিল্লিতে এলে তাঁকে অবশ্যই টেস্ট করা হবে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More